গলাচিপা উপজেলা


গলাচিপা উপজেলা (পটুয়াখালী জেলা)  আয়তন: ১২৬৭.৮৯ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২১°৪৮´ থেকে ২২°২১´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯০°১৫´ থেকে ৯০°৩৭´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তরে পটুয়াখালী সদর, বাউফল ও দশমিনা উপজেলা, পূর্বে দশমিনা ও চরফ্যাশন উপজেলা, দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর ও রাঙ্গাবালী উপজেলা, পশ্চিমে আমতলী ও কলাপাড়া উপজেলা।

জনসংখ্যা ২৩৮৬৮১; পুরুষ ১১৯১৮৯, মহিলা ১১৯৪৯২। মুসলিম ২১৭৫৮৮, হিন্দু ২১০৫০, বৌদ্ধ ১১ এবং অন্যান্য ৩২। এ উপজেলায় আদিবাসী রাখাইন জনগোষ্ঠীর বাস রয়েছে।

জলাশয় তেঁতুলিয়া, গলাচিপা, কাজল, আগুনমুখা ও চরকলমি প্রধান নদী এবং রাবনাবাদ চ্যানেল উল্লেখযোগ্য।

প্রশাসন থানা গঠিত হয় ১৮৭৩ সালে এবং উপজেলায় রূপান্তর হয় ১৯৮৩ সালে।

উপজেলা
পৌরসভা ইউনিয়ন মৌজা গ্রাম জনসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
১১ ৯০ ১৪৯ ২২৩০১ ২১৬৩৮০ ১৮৮ ৬২.৭ ৪২.৯৭
পৌরসভা
আয়তন (বর্গ কিমি) ওয়ার্ড মহল্লা লোকসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
৩.৩৯ ১৭৩৭৩ ৫১১০ ৪৮.১৫
পৌরসভার বাইরে উপজেলা শহর
আয়তন (বর্গ কিমি) মৌজা লোকসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
৫.১৩ ৪৯২৮ ১০৯ ৯৬১
ইউনিয়ন
ইউনিয়নের নাম ও জিও কোড আয়তন (একর) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%)
পুরুষ মহিলা
আমখোলা ১১ ১১৬৭৩ ১৪১৫৯ ১৩৯৭৩ ৩৮.৭৮
গজালিয়া ৬৯ - ২৫৪২ ৬৮১৫ ৪৫.৯৮
গলাচিপা ৬৭ ১১৪৩৩ ৮০৯৮ ৭৭৬৪ ৪২.০৮
গোলখালী ৭২ ১৬৭৩০ ১৪৮৮২ ১৪৮৪৪ ৩৮.১৭
চর কাজল ৩৯ ২৫১৫৯ ১১১৪৩ ১০২১৪ ২৮.৮২
চর বিশ্বাস ৩৭ - ৮৮৯২ ৮২১৫ ৩৬.৮৪
চিকনিকান্দি ৩২ ১২১৮৮ ৭৪৮৪ ৭৫২২ ৫০.৫২
ডাকুয়া ৫৫ ৮০১৭ ৯১৭৪ ৮৬৯৯ ৪৬.৭২
পানপট্টি ৭৮ ৭১৮৫ ৮৭৮১ ৮৪৫৬ ৫৫.০৮
বকুলবাড়ীয়া ২২ ১২৭৯২ ১৩৭৪৮ ১৪০৭৯ ৪৩.৫৮
রতনদি তালতলী ৯৪ ৭৩৯৬ ৮৪৫৫ ৮৪৪১ ৪৬.১৩

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

GalachipaUpazila.jpg

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ সূতাবাড়িয়া দয়াময়ী মন্দির (১২০৮), রতনদীর এক গম্বুজবিশিষ্ট গুরিন্দা মসজিদ (অষ্টাদশ শতক)।

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি ১৯৭১ সালের ৮ মে পাকসেনারা চিকনিকান্দি ও ডাকুয়া গ্রামে হামলা চালিয়ে ২৯ জন গ্রামবাসীকে হত্যা করে এবং বহু ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয়। ১৮ নভেম্বর পানপট্টি গ্রামে পাকসেনাদের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের লড়াইয়ে ৩ জন পাকসেনা নিহত হয়।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন স্মৃতিস্তম্ভ ২।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মসজিদ ১০০১, মন্দির ৫০, বৌদ্ধবিহার ১০, প্যাগোডা ১, মাযার ৩। রতনদির একগম্বুজবিশিষ্ট গুরিন্দা মসজিদ (১৮ শতক), বাঁশবাড়িয়া তালুকদার বাড়ির মসজিদ (২০ শতক), লামনা শিকদার বাড়ির মসজিদ, সূতাবাড়িয়া দয়াময়ী মন্দির (১২০৮). কাচারিবাড়ি মন্দির, কল্যাণকলস কালীবাড়ি মন্দির।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ৫২.৮৪%; পুরুষ ৪৬.৫%, মহিলা ৩৯.১%। কলেজ ৭, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৫৩, মাদ্রাসা ৮, প্রাথমিক বিদ্যালয় ২৩০, স্যাটেলাইট বিদ্যালয় ১৪, কমিউনিটি বিদ্যালয় ৯। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: গলাচিপা ডিগ্রী কলেজ (১৯৭২), গলাচিপা মহিলা কলেজ (১৯৯৫), পাতাবুনিয়া আদর্শ কারিগরি কলেজ (১৯৯৬), উলানিয়া হাট স্কুল ও কলেজ (১৯৯৫), এস.এম. সেকান্দার আলী চৌধুরী ডিগ্রী কলেজ (১৯৯৪), চিকনিকান্দি মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৩০), গলাচিপা মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৩২), পাতবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৬৭), খারিজ্জমা মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৬৬), লামনা ছালেহিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা (১৯৩৫)।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ক্লাব ২২, লাইব্রেরি ১, প্রেসক্লাব ১, থিয়েটার গ্রুপ ২, যাত্রাপার্টি ১, সিনেমা হল ৬, খেলার মাঠ ৫২।

দর্শনীয় স্থান এ উপজেলার সোনার চর থেকে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত উপভোগ করা যায়। এখানে আরো আছে চন্দ্রদ্বীপ রাজ্যের রানী কমলার রাজধানী কালারাজা এবং রাবনাবাদ ও রাঙ্গাবালি চ্যানেল।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৬৮.১৮%, অকৃষি শ্রমিক ৫.৪১%, শিল্প ০.৪০%, ব্যবসা ১১.৫৩%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ১.১৯%, চাকরি ৪.২২%, নির্মাণ ১.২৩%, ধর্মীয় সেবা ০.২৫%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ০.১৮% এবং অন্যান্য ৭.৪১%।

প্রধান কৃষি ফসল ধান,  ডাল, বাদাম, পান, মরিচ, শাকসবজি।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি তিল, সরিষা, কাউন, চৈতাবোরো ধান, সাক্ষর কোড়া ধান।

বিশেষ ফল-ফলাদি  আম, কাঁঠাল, পেঁপে, নারিকেল।

মৎস্য, গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির খামার এ উপজেলায় মৎস্য, চিংড়ি, গবাদিপশু  ও হাঁস-মুরগির খামার রয়েছে।

যোগাযোগ বিশেষত্ব পাকারাস্তা ৪৬ কিমি, আধাপাকারাস্তা ২০ কিমি, কাঁচারাস্তা ১০০০ কিমি।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন পাল্কি, গরুর গাড়ি।

শিল্প ও কলকারখানা বরফকল, করাতকল, চালকল প্রভুতি।

কুটিরশিল্প তাঁতশিল্প, ওয়েল্ডিং কারখানা, স্বর্ণশিল্প, লোহার কাজ, কাঠের কাজ, সেলাই কাজ ইত্যাদি।

হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ৫১, মেলা ১। গলাচিপা বাজার, কলাগাছিয়া হাট, উলানিয়া হাট, বাহেরচর হাট এবং সূতাবাড়িয়া দয়াময়ী মেলা উল্লেখযোগ্য।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য   ধান, মাছ, বাদাম, মরিচ, পান।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ উপজেলার ৫.১৯% (শহরে ৪১.০৫% ও গ্রামে ২.৪৯%) পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৯১.৫৭%, পুকুর ৫.৪০%, ট্যাপ ০.২৫% এবং অন্যান্য ২.৭৮%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা এ উপজেলার ১৩.১৬% (গ্রামে ৯.৬৯% ও শহরে ৬৯.৮৪%) পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ৭৪.৯২% (গ্রামে ৭৮.৭৪% ও শহরে ২৪.১৪%) পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ১১.৯২% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১, উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র ৪, বেসরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্র ১, পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ১০।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ ১৫৮৪, ১৯৬০ ও ১৯৭০ সালের প্রলয়ঙ্কারী ঘূর্ণিঝড় এবং ১৮৭৬ সালের বন্যায় বহু লোকের প্রাণহানি  ঘটে এবং ঘরবাড়ি, গবাদিপশু ও অন্যান্য সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি হয়।

এনজিও আশা, এস.সি.আই, কোডেক, ব্র্যাক, আরবান, স্যাপ-বাংলাদেশ, বাওপা, সিইপি বার্ড, সি.এইচ.ডি.পি। [শংকর লাল দাশ]

তথ্যসূত্র  আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো, গলাচিপা উপৃজলা সাংস্কৃতিক সমীক্ষা প্রতিবেদন ২০০৭।