খোদার পাথর ভিটা


খোদার পাথর ভিটা, বগুড়া

খোদার পাথর ভিটা  বগুড়া জেলার মহাস্থানগড়ে (পুন্ড্রনগর) অবস্থিত একটি টিলা বা ঢিবি। ঢিবিটির উপরিভাগে প্রাপ্ত গ্রানাইট পাথরের প্রকান্ড একটি চৌকাঠ (২.৮৪ মি × ০.৭১ মি × ০.৭৪ মি) থেকেই স্থানীয় জনগণ ঢিবিটির এ অদ্ভুত নামকরণ করেছে। এ প্রকান্ড চৌকাঠটিতে রয়েছে দরজার হুড়কো লাগাবার দুটি ছিদ্র, উপরের দিকে ফোকর এবং উদ্গত ফুলের নকশা। স্থানীয় হিন্দু ও মুসলমানরা এখানে নগ্ন পায়ে পাথরের এ চৌকাঠটিতে ভক্তি নিবেদন করত এবং এখনও করে।

১৯৭০ সালে এ ঢিবিতে (৪৬.৯৪ মি × ৪০.৮৪ মি × ২.৪৪ মি) খননকার্যের ফলে একটি মন্দির এবং ছোটখাটো কিছু প্রত্ননিদর্শন পাওয়া গেছে। মন্দিরটি পূর্বাভিমুখী একটি আয়তাকার বৌদ্ধ মন্দির। এতে রয়েছে পাথরে বাঁধানো মেঝে এবং ভিত-দেয়াল। ভিতের উপর স্থাপিত দেয়াল ছিল কাদামাটিতে গাঁথা ইটের তৈরী। দরজার চৌকাঠের বাজু, সরদল এবং দরজার উপরের দিকের অলংকৃত অংশ সম্ভবত পাথরে নির্মিত হয়েছিল। এ স্থানে খননকার্যের ফলে প্রাপ্ত খোদাইকৃত প্রস্তরখন্ডগুলির একটিতে (৬৯ মি × ২০ সেমি × ১৮ সেমি) ফুলের উদ্গত নকশার মধ্যে একই সারিতে আসীন তিনটি বৌদ্ধমূর্তি রয়েছে।

বর্তমানে এটি রাজশাহীর বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর এ রক্ষিত আছে। প্রকান্ড চৌকাঠটি ব্যতীত প্রত্নস্থলটির কাঠামোর ধংসাবশেষ এখনও মাটির নিচে চাপা পড়ে আছে। প্রত্নস্থল ও এর আশেপাশে বহুসংখ্যক ইট ও পাথরের টুকরা ছড়িয়ে রয়েছে। এ ঢিবির ধ্বংসাবশেষ পাল আমলের প্রথম দিকের (আনু. খ্রিস্টীয় আট শতক) বলে চিহ্নিত করা হয়েছে।  [আইয়ূব খান]