খালিশপুর থানা


খালিশপুর থানা (খুলনা মেট্রোপলিটন)  আয়তন: ১২.৩৫ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২২°৫০´ থেকে ২২°৫২´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৯°৩১´ থেকে ৮৯°৩৪´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তরে দিঘলিয়া উপজেলা ও দৌলতপুর থানা, দক্ষিণে কোতোয়ালী ও সোনাডাঙ্গা থানা এবং ডুমুরিয়া উপজেলা, পূর্বে রূপসা ও দিঘলিয়া উপজেলা, পশ্চিমে দৌলতপুর থানা ও ডুমুরিয়া উপজেলা।

জনসংখ্যা ২৩৫০১৮; পুরুষ ১২৮৪৭৪, মহিলা ১০৬৫৪৪। মুসলিম ২২২৫০৩, হিন্দু ৯১৭১, বৌদ্ধ ৩২৩৭, খ্রিস্টান ৯১ এবং অন্যান্য ১৬।

জলাশয় প্রধান নদী: ভৈরব।

প্রশাসন খালিশপুর থানা গঠিত হয় ১৯৮৬ সালে।

থানা
ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন মহল্লা জনসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
৮+২ (আংশিক) ৪১ ২৩৫০১৮ - ২০৪৯০ ৭৩.৭২ -
ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন
ওয়ার্ড নম্বর ও ইউনিয়ন আয়তন (বর্গ কিমি) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%)
পুরুষ মহিলা
ওয়ার্ড  নং ৭ ০.৪০ ৮০১৪ ৬৭৯৪ ৬৩.৩২
ওয়ার্ড  নং ৮ ০.৪৬ ১১৬২০ ৬৯২৫ ৮০.৪৩
ওয়ার্ড  নং ৯ ২.৮৯ ১৮২৪৬ ১৬৩৬৮ ৬৯.৩৭
ওয়ার্ড  নং ১০ ০.৯৫ ৯৬৮৮ ৮৮৩০ ৭৪.৭৬
ওয়ার্ড  নং ১১ ০.৩৬ ১১৫১২ ৭৮৮৬ ৭৮.৬৩
ওয়ার্ড  নং ১২ ১.০০ ২৭১৫৩ ২৪৮৮৩ ৭২.৬৬
ওয়ার্ড  নং ১৩ ১.২০ ১১৪৭৫ ৮৪৮৪ ৭৫.৩০
ওয়ার্ড  নং ১৪ ১.৬৯ ১৩৮৯৫ ১২৫৪৯ ৭৪.৪৪
ওয়ার্ড  নং ১৫ (আংশিক) ২.৩৮ ১৪১৮০ ১১৫৪৪ ৭৮.৫৮
ওয়ার্ড  নং ১৬ (আংশিক) ১.০২ ২৬৯১ ২২৮১ ৬০.১৯

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ মহিম দাশের বাড়ি, খালিশপুর সত্য আশ্রম।

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে বৈকালী সিনেমা হল ও বয়রা গার্লস কলেজ এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাকবাহিনীর যুদ্ধে বহু মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। এছাড়া খালিশপুরের মুন্সি সিদ্দিকুর রহমানের বাড়িতে পাকনেসারা ১৩ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে। এ হত্যাযজ্ঞটি ‘মুন্সি বাড়ির ট্রাজেডি’ নামে পরিচিত।

খালিশপুর থানা

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন স্মৃতিস্তম্ভ ১।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মসজিদ ৩০, মন্দির ২, গির্জা ১।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ৭৩.৭২%; পুরুষ ৭৭.৪৬%, মহিলা ৬৯.১৫%। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: খালিশপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯০৪)।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান স্টেডিয়াম ১, সিনেমা হল ৩, মহিলা সংগঠন ১, খেলার মাঠ ১০।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৩.০৩%, অকৃষি শ্রমিক ৪.৮৪%, ব্যবসা ১৭.৯২%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ৭.৭৪%, চাকরি ৪৩.৯৮%, নির্মাণ ৩.৩১%, ধর্মীয় সেবা ০.১৯%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ১.৯৮% এবং অন্যান্য ১৭.০১%।

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৪৯.৯৪%, ভূমিহীন ৫০.০৬%।

প্রধান কৃষি ফসল ধান, পাট, সুপারি, শাকসবজি।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসল  পান, আলু, নীল।

প্রধান ফল-ফলাদিব আম, কাঁঠাল, লিচু, পেঁপে, জাম, নারিকেল।

হাঁস-মুরগির খামার  ২০।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন পাল্কি, ঘোড়ার গাড়ি।

শিল্প ও কলকারখানা জুট মিলস ৫, স্টিলমিল ২, কোল্ড স্টোরেজ ১। নিউজপ্রিন্ট মিল, খুলনা হার্ডবোর্ড মিল উল্লেখযোগ্য।

কুটিরশিল্প কুটিরশিল্প ১৫, পাইপ সিআই সিট কারখানা ১।

হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ৪, মেলা ৩।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য   পাট, পাটজাত দ্রব্য, নিউজপ্রিন্ট, হার্ডবোর্ড।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ থানার ৮৭.৬০% পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৯০.৬১%, ট্যাপ ৮.৯৪%, পুকুর ০.০৬% এবং অন্যান্য ০.৩৯%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা এ থানার ৮৭.০০% পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ১২.২৫% পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ০.৭৫% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র খুলনা মেডিক্যাল হাসপাতাল (বয়রা), ইউসেফ এইচ পি স্বাস্থ্যকেন্দ্র ১, পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ৯, শিশু হাসপাতাল ১।

এনজিও আশা, প্রশিকা, কেয়ার, কনসার্ন, ব্রিজ, প্রিজম বাংলাদেশ ইত্যাদি।  [একরামুল কবির]

তথ্যসূত্র   আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো; খালিশপুর থানার মাঠ পর্যায়ের প্রতিবেদন।