খান, মুনশি আদালত


খান, মুনশি আদালত (১৮৪৪-১৮৯৪)  ফোর্ট উইলিয়ম কলেজের মুনশি, লেখক।  মানিকগঞ্জ জেলার দাদরখি গ্রামে তাঁর জন্ম। পিতা জুলফিকার খান ছিলেন ফোর্ট উইলিয়ম কলেজের প্রাচ্যশাখার গ্রন্থাগারিক। আদালত খান  কলকাতা মাদ্রাসা ও প্রেসিডেন্সি কলেজে শিক্ষা লাভ করেন। তিনি উচ্চতর পাঠ্যপুস্তক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ১৮৬২ সালে ফোর্ট উইলিয়ম কলেজের বোর্ড অফ একজামিনার্স-এর মুনশিপদে যোগদান করেন। তিনি  ফারসি ও হিন্দি বিষয়ে সিভিলিয়ান ও সেনা অফিসারদের শিক্ষা দিতেন। শিক্ষকতা ও সাহিত্যকর্ম উভয় ক্ষেত্রেই তিনি সুনাম অর্জন করেন। কেবল ভারতবর্ষেই নয়, সুদূর ইউরোপেও তাঁর পান্ডিত্যের খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। বাংলার ছোটলাট তাঁকে এ মর্মে একটি প্রশংসাপত্রও দিয়েছিলেন।

আদালত খানের জ্ঞানচর্চার দুটি বিশেষ দিক হলো পাঠ্যপুস্তক ও অভিধান প্রণয়ন। তাঁর প্রণীত পাঠ্যপুস্তকের অধিকাংশই ব্রজবুলি, ফারসি, বাংলা, হিন্দি,  উর্দু ও  আরবি থেকে ইংরেজিতে অনুবাদ। বহুভাষিক দুটি অভিধান রচনা তাঁর বিশেষ কীর্তি। সেগুলির একটি ত্রিভাষিক (হিন্দি, ফারসি ও বাংলা, ১৮৭২) এবং অপরটি পঞ্চভাষিক (বাংলা, ইংরেজি, ফারসি, উর্দু ও হিন্দি, ১৮৮০)। তাঁর অপরাপর গ্রন্থ: বেতাল পচিশি (১৮৬৪), বোস্তা (১৮৬৮), রামায়ণ (১৮৭২), প্রেমসাগর ও বাগবাহার (১৮৭৫), ভারতবর্ষের ইতিহাস ও বাগবাহার (১৮৭৭), গুলিস্তা (১৮৮০), ইকদ-ই-গুল (১৮৮৩),  গুলে বকাওলী, তোতাকাহিনী, বাহার-ই-দানিশ, আলিফ লায়লা ও চাহার দরবেশ। এ সকল গ্রন্থ থেকে ভারত ও আরব-ইরানের বিভিন্ন ভাষা, ইতিহাস, ভূগোল,  পুরাণ, জাতিতত্ত্ব ও ধর্মতত্ত্ব সম্পর্কে তাঁর অসাধারণ পান্ডিত্যের পরিচয় পাওয়া যায়।  [বদিউজ্জামান]