কোরেশী মাগন ঠাকুর


কোরেশী মাগন ঠাকুর (১৭শ শতক)  মধ্যযুগীয় বাংলা সাহিত্যের একজন কবি। চন্দ্রাবতী কাব্যের রচয়িতা কোরেশী মাগন ঠাকুর এবং আরাকানের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দিক বংশজাত মাগন ঠাকুর একই ব্যক্তি ছিলেন এরূপ মনে করে তাঁর জীবনকথা আলোচনা করা হয়। মাগন ঠাকুরের পিতা বড়াই ঠাকুর (শ্রীবড় ঠাকুর) ছিলেন আরাকানের একজন মন্ত্রী। রোসাঙ্গের অধিপতি নরপতিগি (১৬৩৮-৪৫) বৃদ্ধ বয়সে তাঁর একমাত্র কন্যার অভিভাবকত্বের ভার মাগন ঠাকুরের ওপর ন্যস্ত করেন। তাঁর মৃত্যুর পর রাজকন্যা মুখ্য পাটেশ্বরী হলে মাগন ঠাকুর মুখ্যপাত্রের (মুখ্যমন্ত্রীর) পদমর্যাদা লাভ করেন।

বাংলা, ফারসি, বর্মি ও সংস্কৃত ভাষায় মাগন ঠাকুরের অগাধ পান্ডিত্য ছিল। সঙ্গীত ও অলঙ্কারশাস্ত্রেও তাঁর দখল ছিল। রোসাঙ্গের কবি  আলাওল তাঁর পৃষ্ঠপোষকতা লাভ করেন এবং তাঁরই নির্দেশে  পদ্মাবতী (১৬৫২) ও সয়ফুলমুলুক বদিউজ্জামাল (১৬৫৯) কাব্য রচনা করেন। মাগন ঠাকুর গুণীর সমাদর করতেন এবং তিনি নিজেও ছিলেন নানা গুণের অধিকারী। তাঁর রচিত চন্দ্রাবতী কাব্যের একটিমাত্র  পুথি পাওয়া গেছে। এটি  লোককাহিনী আশ্রিত রোমান্টিক প্রণয়কাব্য। বর্ণনাধর্মী এ কাব্যে সাহিত্যিক গুণের অভাব থাকলেও মধ্যযুগের কাব্য হিসেবে এর ঐতিহাসিক গুরুত্ব রয়েছে।  [ওয়াকিল আহমদ]