কায়স্থ


কায়স্থ  হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি উপবর্ণ বিশেষ। এরা করণ-কায়স্থ নামেও পরিচিত। নয় থেকে এগারো শতকে কায়স্থরা বাংলাদেশে একটি বৃহৎ উপবর্ণ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। প্রাচীন লিপিতে বাংলাদেশে কায়স্থ নামে পরিচিত এক শ্রেণির রাজকর্মচারীর উল্লেখ পাওয়া যায়। সেখানে তারা করণ, কায়স্থ, লেখক কিংবা হিসাবরক্ষক বলে উল্লিখিত হয়েছে। এগার শতকের কোষকার বৈজয়ন্তী তাদের লেখক, করণ ও কায়স্থ বলে উল্লেখ করেছেন। করণ শব্দটি কোথাও লেখক, কোথাও হিসাবরক্ষক আবার কোথাও ভিন্ন অর্থেও ব্যবহূত হয়েছে। বৃহদ্ধর্মপুরাণে  করণ ও কায়স্থ একই।

কায়স্থরা চিত্রগুপ্তকে তাদের আদিপুরুষ মনে করে। হিন্দু সমাজে কায়স্থদের স্থান ব্রাহ্মণদের পরেই। যাদের পদবি চন্দ, গুপ্ত, নাগ, দাশ, আদিত্য, নন্দী, মিত্র, শীল, ধর, কর, দত্ত, রক্ষিত, ভদ্র, দেব, পালিত, ঘোষ, বোস, গুহ ইত্যাদি সাধারণত তারাই কায়স্থ সম্প্রদায়ভুক্ত। কায়স্থরা  ক্ষত্রিয়, উত্তম সংকর  শূদ্র এবং বর্ণহিন্দু হিসেবে পরিচিত। পাল, সেন, মুসলিম ও ইংরেজ আমলে কায়স্থরা শিক্ষার সুবাদে উচ্চপদে আসীন থেকে শিক্ষা, সাহিত্য, শিল্প, অর্থনীতি ও সমাজ উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। তাদের ধর্মীয় এবং সামাজিক আচার-আচরণ সাধারণ হিন্দুদের মতোই।  [হীরালাল বালা]