করিম, এ.কে.এম বজলুল


করিম, এ.কে.এম বজলুল (১৯৩২-১৯৭৭)  নাট্য নির্দেশক, গ্রুপ থিয়েটার কর্মী, অনুবাদক। ১৯৩২ খ্রিস্টাব্দের ২৩ মার্চ কুমিল্লায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন।  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি ইংরেজিতে এমএ পাস করেন। পঞ্চাশের দশকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র অবস্থায় প্রগতিশীল নাট্যচর্চার সঙ্গে জড়িত হন। ডাকসু এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংস্কৃতি সংসদের উদ্যোগে কার্জন হলে মঞ্চস্থ নীলদর্পণ (১৯৫৫), পরিহাস বিজলিপিতম (১৯৫৬) এবং কেউ কিছু বলতে পারে না (১৯৫৬) নাটকে অভিনয় করে তিনি খ্যাতি অর্জন করেন। বাংলাদেশে পেশাদার নাট্যচর্চার অন্যতম অগ্রপথিক হিসেবে তিনি নাট্য সংগঠন প্রতিষ্ঠা, নাট্য পরিচালনা, প্রযোজনা ও বিদেশি নাটক অনুবাদের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তিনি বাংলাদেশের প্রথম গ্রুপ থিয়েটার ড্রামা সার্কেল (১৯৫৬)-এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন। ১৯৬৩ সালের পর কয়েক বছর তিনি বিদেশে ছিলেন। সেখান থেকে ১৯৭৩ সালে দেশে ফিরে উক্ত নাট্যগোষ্ঠীকে পুনরুজ্জীবিত করে ব্যতিক্রমধর্মী নাটক প্রযোজনা ও পরিচালনা করেন। তাঁর অনূদিত ও পরিচালিত নাটকের মধ্যে রয়েছে: সবাই আমার ছেলে (১৯৫৯), রাজা ইডিপাস (১৯৬২), কালবেলা (১৯৬২), আর্মস এ্যান্ড দি ম্যান (১৯৬৩ ও ১৯৭৩), সপ্ত সুরের থীবি আক্রমণ (১৯৬৩) ও দান্তের মৃত্যু (১৯৭৭)।  [অনুপম হায়াৎ]