কমনওয়েলথ


কমনওয়েলথ  স্বাধীন রাষ্ট্রের সমন্বয়ে গঠিত একটি স্বেচ্ছাসেবী আন্তর্জাতিক সংগঠন। এক সময়ে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত ছিল বিশ্বের এমন সব স্বাধীন রাষ্ট্র সমন্বয়ে বর্তমানে কমনওয়েলথ গঠিত। ১৯৩১ সালে ওয়েস্টমিনিস্টার সংবিধি বলে গ্রেট ব্রিটেন, আইরিশ ফ্রি স্টেট (বর্তমানে আয়ারল্যান্ড প্রজাতন্ত্র), কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকা সমন্বয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কমনওয়েলথ গঠিত হয়। বর্তমানে বিশ্বের ৫৪টি স্বাধীন রাষ্ট্র কমনওয়েলথের অন্তর্ভুক্ত। আফ্রিকা থেকে ভারত, প্রশান্ত মহাসাগরের তীর থেকে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জ পর্যন্ত বিস্তৃত ভূখন্ডে কমনওয়েলথের কমবেশি ১৬০ কোটি জনগোষ্ঠী পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার প্রায় এক-চতুর্থাংশ।

১৯৪৭ সালে ভারত ও পাকিস্তান (তৎকালীন পূর্ব বাংলাসহ) ডোমিনিয়ন হিসেবে স্বাধীনতা লাভ করে কমনওয়েলথের সদস্য হয়। শ্রীলংকা পরবর্তী বছর সদস্যভুক্ত হয়। এ ঘটনাপ্রবাহ সংগঠনটিকে বহুজাতিক রূপ দেয়। কমনওয়েলথে স্বাধীন রাষ্ট্রসমূহের অন্তর্ভুক্তি এর মূল চরিত্রে পরিবর্তন ঘটায়। ভারতের প্রধানমন্ত্রী পন্ডিত জওহরলাল নেহরু ব্রিটিশ কমনওয়েলথ-এর পরিবর্তে ‘কমনওয়েলথ অব ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্টেট্স’ নামকরণের প্রস্তাব করেছিলেন। অন্যান্য সদস্য একমত হন যে, কোনো সদস্য-রাষ্ট্র ব্রিটিশ সম্রাটকে রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে রাখুক বা না রাখুক, তিনিই হবেন ‘সদস্য রাষ্ট্রসমূহের মুক্ত সংগঠনের প্রতীক এবং ফলত কমনওয়েলথ প্রধান’। এভাবেই রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ সকল সদস্য-রাষ্ট্রের পক্ষে কমনওয়েলথের প্রধান হিসেবে কানাডা, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের রানী এবং সে সঙ্গে অন্যান্য সদস্য রাষ্ট্রের রানী। সকল শীর্ষ বৈঠকেই তার উপস্থিতি ধরে নেয়া হয়, অথচ কোনো সভায়ই তিনি অংশগ্রহণ করেন না।

অংশত আন্তর্জাতিক রাজনীতির প্রভাবে এবং কিছুটা সদস্য-রাষ্ট্রসমূহের মধ্যে অভ্যন্তরীণ টানাপোড়েনের কারণে বেশ কয়েকটি রাষ্ট্র কমনওয়েলথ ত্যাগ করেছে; কিন্তু পরে আবার এ সংস্থায় যোগ দিয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা সরকারের বর্ণবৈষম্য নীতির কারণে ১৯৬১ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার সদস্যপদের আবেদন প্রত্যাখ্যান করা হয়। তবে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে বহুবর্ণ সমর্থিত নতুন সরকারের নির্বাচনের পর ১৯৯৪ সালের ৩১ মার্চ দক্ষিণ আফ্রিকাকে কমনওয়েলথের সদস্যপদ প্রদান করা হয়। সদস্য-রাষ্ট্রগুলো বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়ে সদস্যভুক্ত করায় পাকিস্তান ১৯৭২ সালে কমনওয়েলথ ত্যাগ করে। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত বেনজীর ভুট্টোর সরকার পুনরায় কমনওয়েলথে যোগদানের আবেদন জানালে ১৯৮৯ সালে পাকিস্তানকে সদস্যভুক্ত করা হয়। অনুরূপভাবে ১৯৮৭ সালে ফিজি দ্বীপে সামরিক অভ্যুত্থানের ফলে সে দেশের সদস্যপদ বাতিল করা হয়। অবশ্য ১৯৯৭ সালের অক্টোবর মাসে ফিজি পুনরায় কমনওয়েলথে যোগ দেয়। ১৯৬০ সালে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে নাইজেরিয়া কমনওয়েলথের সদস্য ছিল। কিন্তু ১৯৯১ সালে হারারে ঘোষণাকে অবজ্ঞা করে নাইজেরিয়া সরকার তার দেশের কয়েকজন বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মীকে মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত করলে ১৯৯৫ সালের নভেম্বরে নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড শহরে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ রাষ্ট্রসমূহের সরকার প্রধানদের সভায় নাইজেরিয়ার সদস্য পদ স্থগিত করা হয়। নাইজেরিয়ায় গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠান এবং ১৯৯৯ সালে নতুন বেসামরিক সরকার গঠনের পর উক্ত স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে নাইজেরিয়াকে পুনরায় কমনওয়েলথের সদস্য করা হয়। একমাত্র আয়ারল্যান্ডই ১৯৪৯ সালে প্রজাতন্ত্র ঘোষিত হবার পর কমনওয়েলথে আর যোগ দেয় নি।

কমনওয়েলথের কোনো সনদ বা কোনো গঠনতান্ত্রিক কাঠামো নেই। কিছু নীতিমালা, পদ্ধতি, প্রচলিত রীতি এবং জাতিসমূহের সর্বসম্মতভাবে গৃহীত ও ঘোষিত প্রত্যয় ও অঙ্গীকারের ভিত্তিতেই এটি পরিচালিত হয়। সমতা, জাতিগত বৈষম্যহীনতা, গণতন্ত্র এবং আইনের শাসনসহ বেশ কিছু সাধারণ মূল্যবোধের বিকাশ ও উন্নয়নে কমনওয়েলথ কাজ করে। সদস্য রাষ্ট্রসমূহের সরকারের পারস্পরিক আলাপ আলোচনাই কমনওয়েলথের দিগনির্দেশনার প্রধান উৎস। এর ভিত্তিতেই কমনওয়েলথ সচিবালয় কর্মসূচি প্রণয়ন করে এবং দ্বিপাক্ষিক বা বহুপাক্ষিক পন্থায় তা বাস্তবায়ন করে। ১৯৬৫ সালে কমনওয়েলথের সচিবালয় প্রতিষ্ঠা করা হয় এবং এর প্রধান কার্যালয় স্থাপিত হয় লন্ডনে। সদস্য-দেশগুলোর বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্য থেকে সচিবালয়ের প্রধান হিসেবে মহাসচিব নির্বাচিত হন।

সদস্য-দেশগুলোর রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিষয়াবলি আলাপ আলোচনার উদ্দেশ্যে প্রতি দু বছর অন্তর কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৭১ সালের পূর্ব পর্যন্ত কমনওয়েলথের সকল সভা লন্ডনেই অনুষ্ঠিত হতো। কিন্তু পরে সরকার প্রধানদের সভা ভিন্ন ভিন্ন দেশে অনুষ্ঠিত হয় এবং স্বাগতিক দেশের সরকার প্রধান ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন। সরকার প্রধানদের সভা থেকে যেসব ঘোষণা ও বিবৃতি প্রদান করা হয়, সদস্য-দেশগুলো তা পালনে অঙ্গীকারবদ্ধ। কমনওয়েলথ সৃষ্টির পর থেকে যে দুটি ঘোষণা সর্বাধিক গুরুত্ব বহন করে তা হলো ১৯৭১ সালে সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত সরকার প্রধানদের সম্মেলনে গৃহীত কমনওয়েলথ নীতিমালা ঘোষণা, এবং ১৯৯১ সালের হারারে ঘোষণা। সিঙ্গাপুর ঘোষণায় বলা হয় যে, সদস্য রাষ্ট্রগুলো অবশ্যই আন্তর্জাতিক শান্তি ও শৃঙ্খলা রক্ষায় জাতিসংঘকে সহায়তা করবে এবং ব্যক্তি স্বাধীনতা, সমঅধিকার ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় বিশ্বাস রাখবে। অপরদিকে ১৯৯১ সালের হারারে ঘোষণায় নববইয়ের দশক ও তৎপরবর্তী সময়ের জন্য সুনির্দিষ্ট ও সুস্পষ্ট লক্ষ্যমালা, মূল্যবোধ ও কৌশল গ্রহণের উদ্দেশ্যে কমনওয়েলথের উপরিউক্ত নীতিমালা আরও জোরদার করার ক্ষেত্রে সদস্যরা একমত হন। সুশাসন এবং মৌলিক গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ও মানবাধিকার বিকাশের উপরও এতে বিশেষ জোর দেয়া হয়।

বাংলাদেশ ১৯৭২ সালে কমনওয়েলথে যোগ দেয়। কমনওয়েলথের অধিকাংশ সদস্য-দেশ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সুস্পষ্ট সমর্থন জানিয়েছিল। কমনওয়েলথে যোগদানের পর থেকে বাংলাদেশ বরাবরই কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের শীর্ষ সম্মেলনে প্রতিনিধিত্ব করেছে এবং রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক বিষয়ক আলোচনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। বাংলাদেশ ১৯৭৩ সালে কানাডার অটোয়াতে অনুষ্ঠিত শীর্ষ সম্মেলনে প্রথমবারের মতো যোগদান করে। দেশের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বব্দবষলু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে জোট নিরপেক্ষ বৈদেশিক নীতি অনুসরণে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা উল্লেখ করে বলেন যে, এ লক্ষ্যসমূহ বাংলাদেশের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক উদ্দেশ্য ও স্বার্থের ভিত্তিতে এবং বিশ্বের পরিবর্তনশীল ঘটনাপ্রবাহ ও সময়ের দাবির প্রতি লক্ষ্য রেখে নির্ধারণ করা হয়েছে।

কমনওয়েলথে যোগদানের পর থেকেই বাংলাদেশ উপনিবেশিক ধ্যানধারণার বিরুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। রোডেশিয়ার নির্বাচনে কমনওয়েলথ পর্যবেক্ষক দলের সদস্য ছিল বাংলাদেশ। এ নির্বাচনের পরেই সেখানে জিম্বাবুয়ে নামে একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্ম হয়। অনুরূপভাবে ১৯৯০ সালে নামিবিয়ার স্বাধীনতা অর্জনের প্রক্রিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশ জড়িত ছিল। এখানে উল্লেখ করা যায়, সদস্য-দেশগুলোর গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে কমনওয়েলথের কর্মসূচির অংশ হিসেবে কমনওয়েলথ সচিবালয় ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশের সাধারণ নির্বাচনে পর্যবেক্ষক দল পাঠিয়েছিল।

কমনওয়েলথের সদস্য হিসেবে বাংলাদেশ দ্বি-পাক্ষিকভাবে এবং কমনওয়েলথ সচিবালয় ও অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের মাধ্যমে উন্নত ও উন্নয়নশীল সদস্য-রাষ্ট্রের নিকট থেকে প্রচুর কারিগরি, আর্থিক ও শিক্ষা খাতে সহায়তা পেয়ে থাকে। কমনওয়েলথ কারিগরি সহায়তা তহবিল খাতের অধীনে বাংলাদেশ বিভিন্ন কমনওয়েলথ কারিগরি সহায়তা কর্মসূচিতেও নিয়মিত অংশগ্রহণ করে। একই সঙ্গে সাধারণ কারিগরি সহায়তা কর্মসূচির মাধ্যমে অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের বিশেষজ্ঞ ও উপদেষ্টার সহায়তা লাভ করে।

কমনওয়েলথ দেশসমূহে নেতৃত্ব সৃষ্টির উদ্দেশ্যে কমনওয়েলথ ফাউন্ডেশন ফেলোশীপ ও বৃত্তি প্রদানের মাধ্যমে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। কমনওয়েলথ বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির কর্মসূচির অধীনে বাংলাদেশের অনেক প্রবীণ পন্ডিত, শিক্ষাবিদ ও কলাকুশলী ফেলোশীপ ও বৃত্তি লাভ করে আসছেন। লন্ডনে অবস্থিত কমনওয়েলথ ইনস্টিটিউটের লক্ষ্য হলো কমনওয়েলথ সদস্য-দেশসমূহের মধ্যে শিক্ষা ও সংস্কৃতির প্রসার ও লেনদেন কর্মসূচির বাস্তবায়ন। কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি অ্যাসোসিয়েশন কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচিতে বাংলাদেশ নিয়মিত অংশগ্রহণ করে। কমনওয়েলথের অপরাপর সদস্য-রাষ্ট্রের মতো বাংলাদেশও প্রতি বছর মার্চ মাসের দ্বিতীয় সোমবার কমনওয়েলথ দিবস পালন করে। বাংলাদেশসহ প্রতিটি সদস্য-দেশেই কমনওয়েলথ অ্যাসোসিয়েশন আছে। এদের মূল কাজ হলো জনগণের মধ্যে কমনওয়েলথের ভাবাদর্শ সমুন্নত করা।

বর্তমানে কমনওয়েলথের সদস্য-দেশ হলো: অ্যান্টিগুয়া ও বারবুডা, অস্ট্রেলিয়া, বাহামা, বাংলাদেশ, বার্বাদোস, বেলিজ, বোৎসোয়ানা, ব্রুনেই দারুসসালাম, ক্যামেরুন, কানাডা, সাইপ্রাস, ডোমিনিকা, ফিজি দ্বীপপুঞ্জ, গাম্বিয়া, ঘানা, গ্রানাডা, গায়ানা, ভারত, জ্যামাইকা, কেনিয়া, কিরিবাতি, লেসোথো, মালাভি, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, মাল্টা, মরিশাস, মোজাম্বিক, নামিবিয়া, নাউরু, নিউজিল্যান্ড, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, পাপুয়া নিউগিনি, সেন্ট কিট্স অ্যান্ড নেভিস, সেন্ট লুসিয়া, সিচিলেস, সিয়েরা লিওন, সিঙ্গাপুর, সলোমন দ্বীপপুঞ্জ, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলংকা, সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইনস, সোয়াজিল্যান্ড, তানজানিয়া, টোঙ্গা, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো, টুভালু, উগান্ডা, যুক্তরাজ্য, ভানুয়াতু, পশ্চিম সামোয়া, জাম্বিয়া, জিম্বাবুয়ে।  [এ.কে.এম ফারুক]