কবিতা


কবিতা  কবিতাবিষয়ক ত্রৈমাসিক পত্রিকা। প্রথম প্রকাশ ১ অক্টোবর ১৯৩৫ (আশ্বিন ১৩৪২)। পত্রিকাটির প্রথম দুবছরের সম্পাদক ছিলেন বুদ্ধদেব বসু ও প্রেমেন্দ্র মিত্র। যৌথ সম্পাদনায় পত্রিকাটি প্রকাশিত হলেও বুদ্ধদেব বসুই এর প্রধান পরিচালক ছিলেন। পত্রিকাটির প্রতি সংখ্যার মূল্য ছয় আনা, বার্ষিক মূল্য দেড় টাকা। কবিতা পত্রিকার প্রথম বর্ষ প্রথম সংখ্যার প্রথম কবি ছিলেন প্রেমেন্দ্র মিত্র। তাঁর কবিতার নাম ‘তামাসা’। দ্বিতীয় বর্ষ থেকে প্রেমেন্দ্র মিত্র পত্রিকা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলে তাঁর জায়গায় সম্পাদক হিসেবে আসেন সমর সেন। কিন্তু এক বছর পরেই সম্পাদনা ও প্রকাশনার দায়িত্ব এককভাবে চলে আসে বুদ্ধদেবের হাতে। পত্রিকার প্রথম সংখ্যা প্রকাশিত হওয়ার পর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর দীর্ঘ পত্রে বুদ্ধদেবকে তাঁর সুখকর মতামত জানিয়েছিলেন।

১৯৩০ এর দশকে একদল তরুণ কবি বাংলা সাহিত্যে রবীন্দ্রপ্রভাব উপেক্ষা করে পাশ্চাত্যের আধুনিক কবিতার রীতি অনুসরণ করে কবিতা রচনায় মেতে উঠেছিলেন। এ আধুনিক কবিদের মুখপাত্র ছিল কবিতা পত্রিকা। অনেক নিরীক্ষণধর্মী কাব্যচর্চা করা হয়েছে এতে। বাংলা ভাষায় গদ্য কবিতা সূচনা ও বিকাশ এ পত্রিকার হাত ধরে। সে সময় এ পত্রিকার সঙ্গে জড়িত ছিল তরুণ কবিদের আড্ডা ‘কবিতা ভবন’ এবং ‘কবিতা ভবন প্রকাশনা’।

আশ্বিন ১৩৪২ বঙ্গাব্দ থেকে চৈত্র ১৩৬৭ বঙ্গাব্দ পর্যন্ত কবিতা পত্রিকার পঁচিশ বছরের জীবনকালে সর্বমোট ৩৪৫জন লেখক এতে অবদান রেখে গেছেন। এঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, প্রেমেন্দ্র মিত্র, বুদ্ধদেব বসু, বিষ্ণু দে, সমর সেন, জীবনানন্দ দাশ, সুধীন্দ্রনাথ দত্ত, অজিত দত্ত, প্রতিভা বসু, সঞ্জয় ভট্টাচার্য, পরিমল রায়, নরেশ গুহ, অচিন্ত্যকুমার সেনগুপ্ত, অমিয় চক্রবর্তী, কামাক্ষীপ্রসাদ চট্টোপাধ্যায়, শামসুর রাহমান, আবু সয়ীদ আইয়ুব, হুমায়ুন কবির, সুভাষ মুখোপাধ্যায়, আনোয়ার পাশা, আল মাহমুদ, মোফাজ্জাল হায়দার চৌধুরী, আলাউদ্দীন আল আজাদ, শঙ্খ ঘোষ প্রমুখ।

কবিতা পত্রিকার মূল বৈশিষ্ট্য কবিতা, কবিতা-সমালোচনা, কবিতাবিষয়ক প্রবন্ধ। এ পত্রিকার অপর একটি বৈশিষ্ট্য বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ করা, যেমন ‘রবীন্দ্র সংখ্যা’, ‘নজরুল সংখ্যা’, ‘জীবনানন্দ সংখ্যা’ ইত্যাদি। কাব্যের রূপ ও রীতি বিষয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ সংখ্যা বেরিয়েছিল তৃতীয় বর্ষ, বৈশাখ ১৩৪৫ সনে। এটি ছিল ‘সমালোচনা সংখ্যা’। এতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘সাহিত্যের স্বরূপ’, জীবনানন্দ দাশের ‘কবিতার কথা’, আবু সয়ীদ আইয়ুবের ‘কাব্যের বিপ্লব ও বিপ্লবের কাব্যে’, বুদ্ধদেব বসুর ‘কবি ও তার সমাজ’ প্রভৃতি প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়।

কবিতা বাংলা সাহিত্যের একটি বৈশিষ্ট্যপূর্ণ যুগ সৃষ্টিকারী পত্রিকা। পঁচিশ বছরের (১৯৩৫-১৯৬০) কবিতা পত্রিকার যুগকে বাংলা সাহিত্যের আধুনিক কবিতার পরিপূর্ণতার যুগ বলা যেতে পারে। এসময় আধুনিক কবিতার সব ধরনের প্রয়োগ এতে স্থান পেয়েছে।  [মামুনূর রশীদ]