ওয়ালিক, নাথানিয়াল


নাথানিয়াল ওয়ালিক

ওয়ালিক, নাথানিয়াল (১৭৮৬-১৮৫৪)  চিকিৎসক ও উদ্ভিদ বিজ্ঞানি। ১৭৮৬ সালের ২৮ জানুয়ারি ডেনমার্কের কোপেন হেগেন শহরে নাথানিয়াল ওয়ালিকের জন্ম। তাঁর পিতা ছিলেন ল্যাজারাস ওয়ালিক উল্ফ এবং মাতা সোফিয়া কলিং। তিনি অ্যাবার্ডিনের মারিশাল কলেজ এবং কোপেন হেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষালাভ করেন। ১৮০৭ সালে তিনি কলকাতার শ্রীরামপুরে ডেনিশ মিশনারীতে মেডিক্যাল সার্জন হিসেবে যোগ দেন। ১৮০৮ সালে শ্রীরামপুর ব্রিটিশদের করায়ত্ব হলে নাথানিয়াল ওয়ালিক কলকাতা বোটানিক্যাল গার্ডেনে ড. উইলিয়ম রোক্সবার্গের অধীনে কিছুকাল কাজ করেন। ১৮১৪ সালে তিনি বেঙ্গল মেডিক্যাল সার্ভিসে যোগ দেন। একসময় তিনি এশিয়াটিক সোসাইটি অব বেঙ্গল এর ওরিয়েন্টাল মিউজিয়ামের সুপারিনটেনডেন্ট ছিলেন।

নাথানিয়াল ওয়ালিক দীর্ঘকাল কলকাতা বোটানিক্যাল গার্ডেনের সুপারিন্টেন্ডেন্ট ছিলেন। নেপালের বিশেষ বিশেষ উদ্ভিদ সম্পর্কে গবেষণার জন্য তিনি ১৮২০ সালে নেপাল যান এবং ১৮২২ সাল পর্যন্ত সেখানে গবেষণায় নিয়োজিত থাকেন। ১৮২৫ সালে তিনি অযোধ্যা ও রোহিলাখন্ডের বনভূমির উপর নিরীক্ষা চালান। ১৮৩৫ সালে তিনি উইলিয়ম গ্রিফিত ও জন ম্যাকলেল্যান্ডের সঙ্গে আসামে শনাক্তকৃত চা গাছ সম্পর্কে গবেষণা পরিচালনা করেন এবং চা গাছের বিকাশের অনুকূল পরিবেশ নিয়ে অনুসন্ধান চালান। ১৮৩৭-৩৮ সালে ওয়ালিক কলকাতা মেডিকেল কলেজে উদ্ভিদবিদ্যা বিষয়ের অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি কোপেনহেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানসূচক ডিগ্রি লাভ করেন এবং রয়্যাল ডেনিশ সোসাইটি অব সাইন্স এর সদস্য ছিলেন। ভারতের বাইরে তিনি পেনাং ও সিঙ্গাপুর ভ্রমণ করে অসংখ্য উদ্ভিদের নমুনা সংগ্রহ করেন। ১৮৪৬ সালে তিনি চাকরি থেকে অবসর নেন এবং ১৮৪৭ সালে তিনি লন্ডনে চলে যান।

নাথানিয়াল ওয়ালিক বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণকালে উদ্ভিদের যেসব নমুনা সংগ্রহ করেন তাঁর ওপর ভিত্তি করে উদ্ভিদ সম্পর্কে ব্যাপক গবেষণা পরিচালনা করেন। উদ্ভিদ সম্পর্কে তাঁর গবেষণামূলক গ্রন্থের মধ্যে অন্যতম: Tentamen Flora Nipalenis (১৮২৪-২৬); A Numerical List of Dried Specimens of Plants in the East India Company’s Museum (১৮২৮-৪৯); Plantae Asiaticae Rariores (১৮৩০-৩২)। এ ছাড়া বিভিন্ন বিজ্ঞান বিষয়ক জার্নালে তাঁর অসংখ্য গবেষণামূলক নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। ১৮৫৪ সালের ২৮ এপ্রিল লন্ডনে তাঁর মৃত্যু হয়। [নাসরীন আক্তার]