এলিস, স্যার টমাস হোবার্ট


এলিস, স্যার টমাস হোবার্ট (১৮৯৪-?)  ঢাকা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি এবং পূর্ব পাকিস্তানের ভারপ্রাপ্ত গভর্নর। তিনি ১৮৯৪ সালের ১১ অক্টোবর লীডসের নিকটবর্তী ফার্সলিতে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মানচেস্টার গ্রামার স্কুলে পড়াশুনা করেন। অক্সফোর্ডের কুইন্স কলেজ থেকে ১৯১৭ সালে স্নাতক ডিগ্রি লাভের পর হোবার্ট এলিস ১৯১৯ সালে ভারতীয় সিভিল সার্ভিসে যোগ দেন। তিনি বিভিন্ন জেলায় মহকুমা প্রশাসক হিসেবে কাজ করেন এবং পরে যশোর জেলায় অতিরিক্ত সেশন জজ নিযুক্ত হন। তাঁকে ১৯৩৮ সালে সালিশি বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং ১৯৪২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বিমান আক্রমণ সতর্কীকরণ অফিসের স্পেশাল অফিসার নিয়োগ করা হয়। তিনি কলকাতা হাইকোর্টে অতিরিক্ত বিচারক (১৯৪৪-১৯৪৭) এবং ১৯৪৭ থেকে ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত ঢাকা হাইকোর্টে বিচারক ছিলেন। হোবার্ট এলিসকে বায়ান্নের ভাষা আন্দোলনে ছাত্র জনতার মিছিলে পুলিশের গুলিবর্ষণের কারণ অনুসন্ধানে গঠিত তদন্ত কমিটির চেয়ারম্যান নিয়োগ করা হয়। পরে তিনি ঢাকা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি হন (১৯৫৩-১৯৫৪)। তিনি ১৯৫৫ থেকে ১৯৫৭ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান সরকারের স্পেশাল অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ব্রিটিশ সরকার ১৯৫৩ সালে তাঁকে ‘নাইট ব্যাচেলর’ খেতাবে ভূষিত করে।

স্যার টমাস হোবার্ট এলিসকে ১৯৫৪ সালের ২১ সেপ্টেম্বর পূর্ব পাকিস্তানের ভারপ্রাপ্ত গভর্নর নিয়োগ করা হয়। তিনি ১৯৫৪ সালের ২৫ অক্টোবর শপথ গ্রহণ করেন এবং ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত ভারপ্রাপ্ত গভর্নরের দায়িত্ব পালন করেন।  [আবু জাফর]