উজির


উজির এর সাধারণ অর্থ প্রধান মন্ত্রী বা মুখ্য মন্ত্রী। আববাসীয় যুগে উজির পদটির অস্তিত্ব ছিল। দিল্লি সালতানাত এবং বাংলার সুলতানী আমলেও উজির প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করতেন। সম্মান ও অবস্থানগত দিক থেকে সুলতানের পরেই ছিলো উজিরের স্থান। তিনি সুলতানের প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন, যদিও সার্বভৌম নৃপতি তাঁকে নিয়োগ প্রদান ও পদচ্যুত করার অধিকার রাখতেন।

মুগল প্রশাসনিকব্যবস্থায় রাজস্ব এবং অর্থনৈতিক বিভাগের দায়িত্বে ছিলেন উজির এবং এ সময়ে এটি রাজস্ব মন্ত্রীর পদে পরিণত হয়। সম্রাট আকবর তাঁর শাসনের অষ্টম বৎসরে মুজাফ্ফর খানকে দিওয়ান-ই-কুল বা উজির হিসেবে নিয়োগ প্রদান করেন। তিনি তাঁর রাজত্বের ভূমি রাজস্ব প্রশাসন ব্যবস্থার কার্যক্রম সহজ কারার উদ্দেশ্যে মূল্য নির্ধারন এবং রাজস্ব সংগ্রহের পদ্ধতির উন্নয়ন এর একটি সুবিধাজনক প্রশাসনিক কৌশল প্রয়োগ করেন। তিনি কেন্দ্র, প্রদেশ, সরকার এবং পরগণা এই চারটি পৃথক স্তরে রাজস্ব মন্ত্রণালয় বা দিওয়ান-ই-ওয়াজিরাত এর কাজ পৃথক করে দেন। এ চার বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেতেন দিওয়ান-ই-কুল বা উজির। তিরি দিওয়ান-ই-আলা নামেও অবিহিত হতেন। সম্রাট আকবর রাজস্ব মন্ত্রন্ত্রণালয় বা ওয়াজিরাতকে একটি সুনির্দিষ্ট বিভাগে পরিণত করেন। তাত্ত্বিকভাবে উজির ছিলেন ওয়াকিল এর অধস্তন, কিন্তু কার্যত তাঁর স্বাধীন কর্তৃত্ব বজায় ছিল এবং ভূমি রাজস্ব ব্যবস্থায় প্রাদেশিক দীউয়ান ছিলেন তাঁর সরাসরি প্রতিনিধি। উজির এর ব্যাপক ক্ষমতা ছিল, তবে তাঁকে ওয়াকিল এর নিকট তাঁর অঞ্চলের আর্থিক বিবরণ প্রেরণ করতে হত এবং কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময়ে তাঁকে ওয়াকিল এর নিকট থেকে অনুমতি নিতে হত। তবে, তাঁকে যে কোনো ধরণের নিয়োগের ক্ষেত্রে, বিশেষ করে সর্ব প্রকার অর্থনৈতিক পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে উজির এর সঙ্গে পরামর্শ করতে হত। প্রাদেশিক দীউয়ান ও তাঁদের দফ্তর সমূহের ওপর উজিরের কঠোর নিয়ন্ত্রণ ছিল এবং তিনি নিয়মিত প্রাদেশ সমূহের আয় ও ব্যায়ের হিসাব নিতেন। রাজকীয় সম্পদও তাঁর নিয়ন্ত্রণাধীনে ছিল।

সামান্য পরিবর্তিত হয়ে এই প্রশাসনিক ব্যবস্থা আঠারো শতকের মধ্যবর্তী সময় পর্যন্ত কার্যকর ছিল। সম্রাট শাহজাহান এর সময়ে দীউয়ান-ই-কুল বা দীউয়ান-ই-আলা দফতর এর উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হয়। সম্রাট আওরঙ্গজেব এর রাজত্বকালে রাজস্ব মন্ত্রণালয়কে বলা হত উজির বা ‘উজির-ই-আজম’ বা ‘উজির-ই-মুকামুয়াজ্জম’। এ সময় পর্যন্ত উজির একজন গুরুত্বপূর্ণ সরকারী কর্মকর্তার ভূমিকা পালন করতেন, এমনকি তাঁর ওপর সামরিক ও রাজনৈতিক দায়িত্বও অর্পণ করা যেত। [নাসরীন আক্তার]

গ্রন্থপঞ্জি  IH Qureshi, The Administration of the Mughal Empire, University of Karachi, 1966. JN Sarkar, Mughal Polity, Delhi, 1984.