ইসলামপুর উপজেলা


ইসলামপুর উপজেলা (জামালপুর জেলা)  আয়তন: ৩৪৩.০২ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২৪°৫৭´ থেকে ২৫°১০´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৯°৩৮´ থেকে ৮৯°৫৬´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তরে দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উপজেলা, দক্ষিণে মাদারগঞ্জ ও মেলান্দহ উপজেলা, পূর্বে শেরপুর সদর ও শ্রীবর্দি উপজেলা, পশ্চিমে সাঘাটা, ফুলছড়ি ও সারিয়াকান্দি উপজেলা।

জনসংখ্যা ২৮৯৩৩৭; পুরুষ ১৪৮১৫৮, মহিলা ১৪১১৭৯। মুসলিম ২৮৪৯৮০, হিন্দু ৪১৮১, বৌদ্ধ ১২, খ্রিস্টান ১০ এবং অন্যান্য ১৫৪।

জলাশয় প্রধান নদ-নদী: যমুনা, পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, বাঙ্গালী নদী। বামনা বিল, বাকর বিল, শিংভাঙ্গা বিল, হাসাল বিল, বানুর বিল, চিলমারী ও রিয়ার বিল এবং কাটাখালী ও দশানী খাল উল্লেখযোগ্য।

প্রশাসন ইসলামপুর  থানা গঠিত হয় ১৯১৪ সালে এবং থানাকে উপজেলায় রূপান্তর করা হয় ১৯৮৩ সালে।

উপজেলা
পৌরসভা ইউনিয়ন মৌজা গ্রাম জনসংখ্যা ঘনত্ব(প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
১২ ৮৬ ১৪৩ ৩৫৪২৭ ২৫৩৯১০ ৮৪৩ ৩৯.০ ২১.৩
পৌরসভা
আয়তন (বর্গ কিমি) ওয়ার্ড মহল্লা লোকসংখ্যা ঘনত্ব(প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
১৬.৭১ ১৮ ৩৫৪২৭ ২১২০ ৩৯.০৫
ইউনিয়ন
ইউনিয়নের নাম ও জিও কোড আয়তন (একর) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%)
পুরুষ মহিলা
ইসলামপুর ৫৫ ৫৫১৪ ৮৯৭৯ ৮৬৫৪ ২১.১৭
কুলকান্দি ৬৩ ৭০২৪ ৬৯২২ ৬৭৭০ ২৭.২০
গাইবান্ধা ৩৯ ৮৯৭১ ১৫১৫৯ ১৪৭১১ ১৫.৫৬
গোয়ালের চর ৪৭ ৬১৯১ ১২৬০৪ ১২০৪৩ ১৬.৪৪
চর গোয়ালিনী ১৫ ৮৬৮১ ৮৪৩৮ ৭৮৭০ ১১.৫৬
চর পুটিমারী ২৩ ৬০০৫ ১৪০৩৯ ১৩১৮৭ ১৪.৮৫
চীনাডুলি ৩১ ৫৯৩৩ ১২২৬৪ ১২০১১ ৩১.৮৮
নোয়ারপাড়া ৭১ ৯৫৬৪ ১৪৯০১ ১৩৭৯৪ ২১.০৭
পাথর্শী ৮৭ ৫৩৫০ ১৩৭৪১ ১৩২৫১ ৩২.৯২
পলবান্ধা ৭৯ ৫১৯৯ ৫৭৭২ ৫৪৩৮ ২৫.৪৪
বেলগাছা ১৩ ৮৭৪৬ ১০৭৬৫ ১০৩৯০ ১৯.০৪
সাপধরী ৯৪ ৭৫৮০ ৬৪৭৪ ৫৭৩৩ ১৫.১৬

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ হযরত  শাহ্ কামালের (রঃ) মাযার (দুরমুঠ), প্রদ্যোৎঠাকুরের কুঠিবাড়ি, জিউ মন্দির, কালী মন্দির, দূর্গাবাড়ি এবং ইটাপীরের মাযার।

ঐতিহাসিক ঘটনাবলি সম্রাট জাহাঙ্গীরের শাসনামলে বাংলার সুবাদার ইসলাম খান একসময় এ এলাকায় আসেন। ধারণা করা হয় তাঁরই নামানুসারে এ স্থানের নামকরণ হয় ইসলামপুর।

IslampurUpazila.jpg


মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন গণকবর ৩ (কুলকান্দি, উপজেলা কমপ্লেক্সের অভ্যন্তরে, মোশারফগঞ্জ)।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মসজিদ ৩২৫, মন্দির ১১।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ২৩.৬%; পুরুষ ২৭.৮%, মহিলা ১৯.২%। কলেজ ৮,মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৩৭, প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৫০, কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ২, কেজি স্কুল ৮, ব্র্যাক স্কুল ৭৪, মাদ্রাসা ৮৬। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান:  ঢেংগারগড় নুরুল হুদা আলিম মাদ্রাসা (১৮৩১), ইসলামপুর নেকজাহান উচ্চ বিদ্যালয় (১৯১৫), ইসলামপুর জে জে কে এম গার্লস হাই স্কুল এন্ড কলেজ (১৯১৭), দেওয়ানগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় (১৯১৯), নীলক্ষিয়া আর.জে পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৩৫), ইসলামপুর কলেজ (১৯৭০)।

পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকী সাপ্তাহিক: ঊর্মি বাংলা, সাপ্তাহিক গাঙচিল, ময়ূখ (অনিয়মিত)।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান গ্রন্থাগার ৩৬, ক্লাব ৫৫, সিনেমা হল ১, নাট্যদল ১, মহিলা সংগঠন ২, খেলার মাঠ ১৭। হাসান হাফিজুর রহমান স্মৃতি সংঘ পাঠাগার (১৯৮৪), শহীদ মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীরোত্তম স্মৃতি সংসদ (১৯৯৫) উল্লেখযোগ্য।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৬৮.৮৩%, অকৃষি শ্রমিক ৩.৪৫%, ব্যবসা ১০.৬৯%, চাকরি ৪.২৭%, নির্মাণ ০.৬১%, ধর্মীয় সেবা ০.২১%, শিল্প ০.৫৫%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ০.২৪%, পরিবহন ও যোগাযোগ ২.২১% এবং অন্যান্য ৮.৯৩%।

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৫৪.৫০%, ভূমিহীন ৪৫.৫০%। শহরে ৩৬.০১% এবং গ্রামে ৫৭.৪১% পরিবারের কৃষিজমি রয়েছে।

প্রধান কৃষি ফসল ধান, পাট, গম, সরিষা, আখ, আলু, ডাল, বেগুন, শাকসবজি।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি চীনাবাদাম, কাউন, ভুট্টা।

প্রধান ফল-ফলাদি আম, কাঁঠাল, নারিকেল, কলা, পেঁপে।

যোগাযোগ বিশেষত্ব পাকারাস্তা ৭৭.৮৬ কিমি, আধা-পাকারাস্তা ৫.৫ কিমি, কাঁচারাস্তা ৪৩৮ কিমি; রেলপথ ২০ কিমি।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন সোয়ারী, পালকি, বজরা, ভেলা।

হাটবাজার ও মেলা ৮। ধর্মকুঁড়া, গুঠাইল, ইসলামপুর উল্লেখযোগ্য।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য   চাল, পাট, আখ, আলু, বেগুন।

মৎস্য, গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির খামার এ উপজেলায় মৎস্য, গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির খামার রয়েছে।

কুটিরশিল্প স্বর্ণশিল্প, লৌহশিল্প, কাঁসাশিল্প, মৃৎশিল্প, তাঁতশিল্প, বাঁশ ও বেতের কাজ, পাট ও তুলার কাজ।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ উপজেলার সবক’টি ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন পল্লিবিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতাধীন। তবে ১১.০৪% (শহরে ২৬.৫২% এবং গ্রামে ৮.৮৪%) পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৯১.৯১%, ট্যাপ ০.১৯%, পুকুর ০.৩৪% এবং অন্যান্য ৭.৫৫%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা ১৫.৪৮% পরিবার (শহরে ২১.১৩% এবং গ্রামে ১৪.৬৮%) স্বাস্থ্যকর এবং ৫৪.৪০% পরিবার (শহরে ৫৩.৯৬% এবং গ্রামে ৫৪.৪৬%) অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ৩০.১২% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১, পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ১২, উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র ৩, ক্লিনিক ৬, কমিউনিটি ক্লিনিক ৪০।

এনজিও ব্র্যাক, আশা।  [সৈয়দ আব্দুল্লাহ আল মামুন চৌধুরী]

তথ্যসূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো; ইসলামপুর উপজেলা সাংস্কৃতিক সমীক্ষা প্রতিবেদন ২০০৭।