ইটনা উপজেলা


ইটনা উপজেলা (কিশোরগঞ্জ জেলা)  আয়তন: ৫০৩.৪০ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২৪°২৭´ থেকে ২৪°৩৯´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯০°৫৭´ থেকে ৯১°৫৭´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তরে মদন ও খালিয়াজুরী উপজেলা, দক্ষিণে মিটামইন ও করিমগঞ্জ উপজেলা, পূর্বে আজমিরিগঞ্জ ও সাল্লা উপজেলা, পশ্চিমে তাড়াইল উপজেলা।

জনসংখ্যা ১৫১১৫৭; পুরুষ ৭৯৬৪৬, মহিলা ৭১৫০৮। মুসলিম ১২৬৬৯০, হিন্দু ২৪৩০৬, বৌদ্ধ ১৯ এবং অন্যান্য ১৪২।

জলাশয় প্রধান নদী: সুরমা, ধনু, বাউলাই ও কালনী। হাউলার হাওর, মাওরা বিল, চাপরা বিল, কৈরা বিল, উগলি বিল, সোনাবান্ধা বিল, ঘোড়া বিল ও আগলপা বিল উল্লেখযোগ্য।

প্রশাসন ইটনা থানা গঠিত হয় ১৯১৭ সালে। এটি উপজেলায় রূপান্তরিত হয় ১৯৮৩ সালে।

উপজেলা
পৌরসভা ইউনিয়ন মৌজা গ্রাম জনসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
- ৯৩ ১২৮ ২০৬৩৫ ১৩০৫২২ ৩০০ ২৬.১ ২৪.৬
উপজেলা শহর
আয়তন (বর্গ কিমি) মৌজা লোকসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
৩৭.৭২ ২০৬৩৫ ৫৪৭ ২৬.১
ইউনিয়ন
ইউনিয়নের নাম ও জিও কোড আয়তন (একর) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%)
পুরুষ মহিলা
ইটনা ৫১ ১২৪১১ ১২০১১ ১০৮৭৭ ২২.৯১
ইলোঙ্গজুরি ৮ ৭৬৩১ ৬২৬৮ ৫৮৩৬ ২৫.২৪
চৌগাংগা ২৭ ১১৯৬৪ ৫৮১০ ৫০৩৮ ২৬.৫৫
জয়সিদ্ধি ৬০ ৯৪১৯ ৭৯৪৬ ৭৫৪৪ ২৫.৩১
ধানপুর ৪৩ ১৬৮৫০ ৬৬৮৭ ৫৬২৫ ৩৩.২১
বদলা ১৭ ১৪২৫২ ৭৯৮৪ ৬৬৫০ ২৩.৫৩
বাড়ীবাড়ী ২৫ ১১১৯৯ ১২৫৫৫ ১১১৭৯ ২১.২৯
মৃগা ৮৬ ১১৯০১ ৯৫৫৪ ৮৮৮৮ ২৪.৪৪
রাইতুতি ৯৪ ১০৪২৯ ১০৮৩৪ ৯৮৭১ ২৫.৪৮

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ বাদশাহী  মসজিদ এবং দীঘি (ইটনা বড়হাটি)।

ItnaUpazila.jpg

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকবাহিনী জয়সিদ্ধি ইউনিয়নের বয়রা গ্রামে বহুলোককে নির্বিচারে হত্যা করে।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন জয়সিদ্ধি ইউনিয়নের বয়রা গ্রামের গণকবর।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মসজিদ ২৫০, মন্দির ৭, মাযার ৬, আখড়া ৪।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ২৪.৮%; পুরুষ ২৮.১%, মহিলা ২১.২%। কলেজ ১, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ১১, প্রাথমিক বিদ্যালয় ৯৩, কিন্ডার গার্টেন ৩, মাদ্রাসা ২১, মক্তব ১৩৭। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: ইটনা মহাবিদ্যালয় (১৯৯৮), মহেশ চন্দ্র শিক্ষা নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৪৩), থানেশ্বর উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৪৭), জয়সিদ্ধি উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৭৪), ইটনা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৮৪), চৌগাংগা ফাজিল মাদ্রাসা (১৯৬২)।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান অফিসার্স ক্লাব ১, যুব সংগঠন ১, মহিলা সংগঠন ১, সাংস্কৃতিক সংগঠন ৫, কমিউনিটি সেন্টার ১।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৭৭.৮৪%, অকৃষি শ্রমিক ৩.৪৫%, ব্যবসা ৬.৪০%, মৎস্য ৩.৯৬%, চাকরি ১.৯৩%, নির্মাণ ০.৪১%, ধর্মীয় সেবা ০.৩০%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ০.১৬%, পরিবহন ও যোগাযোগ ০.৩৭%, শিল্প ০.৩২% এবং অন্যান্য ৪.৮৬%।

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৫৩.৯১%, ভূমিহীন ৪৬.০৯%। শহরে ৩৯.২২% এবং গ্রামে ৫৬.১৭% পরিবারের কৃষিজমি রয়েছে।

প্রধান কৃষি ফসল ধান, আলু, সরিষা, বাদাম, শাকসবজি।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি কাউন, চিনা।

প্রধান ফল-ফলাদিব আম, জাম, কলা।

মৎস্য, গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির খামার মৎস্য ২১৫, হাঁস-মুরগি ৮১, হ্যাচারি ১২। এছাড়া মুক্তভাবে এ উপজেলায় গবাদিপশু পালিত হয়।

যোগাযোগ বিশেষত্ব পাকারাস্তা ৮ কিমি, কাঁচারাস্তা ৭৪ কিমি, নৌপথ ৯.১৮ নটিক্যাল মাইল।

বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন  পালকি।

হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ১২, মেলা ৩। নতুন বাজার, পুরান বাজার, ধনপুর বাজার, জয়সিদ্ধি বাজার, ইলোঙ্গজুরি বাজার, বর্শিকুড়া বাজার উল্লেখযাগ্য।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য   ধান, মাছ, আলু, চীনাবাদাম।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ উপজেলার সবক’টি ইউনিয়ন পল্লিলবিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতাধীন। তবে ৯.২৭% পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৮৮.২৩%, পুকুর ৪.১২%, ট্যাপ ০.৪৪% এবং অন্যান্য ৭.২১%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা এ উপজেলার ১০.৩৪% (গ্রামে ৯.৪৪% ও শহরে ১৬.১৯%) পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ৭৯.৫৫% (গ্রামে ৮০.০০% ও শহরে ৭৬.৬৩%) পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ১০.১১% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র হাসপাতাল ১, পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ৪, উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র ১।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ ১৯৪৩ সালের দুর্ভিক্ষে এ উপজেলার অনেক মানুষ প্রাণ হারায়। এছাড়া ১৯৭৪, ১৯৮৮ ও ১৯৯৮ সালের বন্যায় এ উপজেলার ঘরবাড়ি, ফসল, গবাদিপশু ও অন্যান্য সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি হয়।

এনজিও ব্র্যাক, কনসার্ন।  [সৌরভ জাহাঙ্গীর]

তথ্যসূত্র   আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো; ইটনা উপজেলা সাংস্কৃতিক সমীক্ষা প্রতিবেদন ২০০৭।