ইজ্জতুল্লাহ বাঙ্গালী


ইজ্জতুল্লাহ বাঙ্গালী (১৮শ শতক)  ফারসি ভাষার লেখক। তিনি পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার অধিবাসী ছিলেন।  ফারসি গদ্যে রচিত তাজলমুলক গুলে বকাওলি (১৭২২) নামে তাঁর একটিমাত্র গ্রন্থ পাওয়া যায়।  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগারে এর একখানি  পান্ডুলিপি (নং এইচ/আর ৬৬.৭) সংরক্ষিত আছে।

তাজলমুলক গুলে বকাওলি  লোককাহিনী আশ্রিত একখানি রোমান্টিক প্রণয়োপাখ্যান। রাজপুত্র তাজলমুলকের সঙ্গে পরিকন্যা গুলে বকাওলির প্রেম-পরিণয়কে কেন্দ্র করে এ কাহিনী গড়ে উঠেছে। ‘বকাওলি’ এক প্রকার ফুল; একমাত্র পরীকন্যার পুষ্পোদ্যানেই তা পাওয়া যায়। অন্ধ পিতার চোখের ঔষধ হিসেবে ওই ফুল সংগ্রহ করতে গিয়ে তাজলমুলক অনেক অলৌকিক ঘটনার সম্মুখীন হয়। শেষ পর্যন্ত সে তা সংগ্রহ করতে সফল হয় এবং প্রণয়সূত্রে পরীকন্যা গুলে বকাওলিকে লাভ করে।

এটি একটি জনপ্রিয় কাহিনী। সতেরো শতকে চট্টগ্রামের  নওয়াজিস খান গুলে বকাওলি নামে বাংলা কাব্য রচনা করেন। ইজ্জতুল্লাহ কোনো এক হিন্দি গ্রন্থের অনুসরণে তাঁর কাব্য রচনা করেন। ফোর্ট উইলিয়ম কলেজের মুনশি নেহালচান্দ লাহোরি ইজ্জতুল্লাহর অনুসরণে মজহাবে ইশক (১৮০৩) নামে এর  উর্দু অনুবাদ করেন।  [ওয়াকিল আহমদ]