আহমদ, ফরিদ


ফরিদ আহমদ

আহমদ, ফরিদ (১৯২৩-১৯৭১)  আইনজীবী, রাজনীতিক। জন্ম ১৯২৩ সালের ৩ জানুয়ারি কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার রশিদনগরে। তিনি কক্সবাজার সরকারি হাইস্কুল থেকে ম্যাট্রিক এবং চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ থেকে আই.এ পাস করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৪৫ সালে ইংরেজিতে বি.এ (অনার্স) এবং ১৯৪৬ সালে এম.এ ডিগ্রি এবং ১৯৪৭ সালে এলএলবি ডিগ্রি লাভ করেন।

ছাত্রজীবন থেকে ফরিদ আহমদ রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি ১৯৪৬-৪৭ সালে ডাকসুর ভিপি (সহ-সভাপতি) নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৫২ সালে নেজামে ইসলাম পার্টিতে যোগ দেন এবং ১৯৫৪ সাল থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত এ দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ফরিদ আহমদ ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে পূর্ব বাংলা প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য এবং ১৯৫৫ সালে পাকিস্তান গণপরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। এ সময় তিনি ছিলেন পূর্ব বাংলা প্রাদেশিক পরিষদের চীফ হুইপ। তিনি ১৯৫৭ সালে ইব্রাহিম ইসমাইল চুন্ড্রিগড়ের মন্ত্রিসভায় পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রীর দায়িত্ব লাভ করেন।

ফরিদ আহমদ ১৯৬২ সালে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৬২-১৯৬৫ সালে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি ১৯৬৪ সালে পূর্ব পাকিস্তানের সম্মিলিত বিরোধী দলের চেয়ারম্যান ছিলেন।

ফরিদ আহমদ ১৯৬৫ সালে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৬৭ সালে পাকিস্তান ডেমোক্র্যাটিক মুভমেন্ট (পিডিএম)-এর সদস্য ছিলেন এবং আইয়ুব বিরোধী গণ-আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬৯ সালের ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাসে আইয়ুব খান কর্তৃক আহুত গোলটেবিল বৈঠকে নেজামে ইসলাম পার্টির প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দেন। ফরিদ আহমদ ১৯৬৯ সালের ২৪ জুন নতুন রাজনৈতিক সংগঠন পাকিস্তান গণতান্ত্রিক দল (পিডিপি) গঠনে ভূমিকা রাখেন এবং এ দলের অন্যতম সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন।

ফরিদ আহমদ ১৯৫৭ সালে লন্ডনে ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের সম্মেলনে পাকিস্তানের প্রতিনিধি হিসেবে অংশ নেন। একই বছর তিনি নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার আঞ্চলিক সম্মেলনে পাকিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করেন। তিনি ১৯৬০ সালে রোমে অনুষ্ঠিত বিশ্ব অলিম্পিকে পাকিস্তান দলের নেতৃত্ব দেন। ফরিদ আহমদ ১৯৬৩ সালে আলজেরিয়ায় অনুষ্ঠিত আফ্রো-এশিয়ান পিপলস সলিডারিটি সম্মেলনে পাকিস্তান দলের নেতৃত্ব দেন এবং ১৯৭১ সালে দামেস্কে অনুষ্ঠিত উক্ত সংস্থার কার্যনির্বাহি কমিটির সভায় পাকিস্তান দলের প্রতিনিধিত্ব করেন।

ফরিদ আহমদের রচিত কয়েকটি উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ হলো মোহাম্মদ আলী ক্লে (১৯৬৫), কারাগারে সাতাইশ দিন (১৯৬৬), The Sun Behind the Clouds, Twenty First February প্রভৃতি। ফরিদ আহমদ দৈনিক নাজাত পত্রিকার ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ও মাসিক পৃথিবীর উপদেষ্টা সম্পাদক ছিলেন।

ফরিদ আহমদ পাকিস্তানের অখন্ডতায় বিশ্বাসী ছিলেন। তিনি ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল ঢাকায় গঠিত শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন। পরবর্তী সময়ে তিনি পূর্ব পাকিস্তান শান্তি ও কল্যাণ কাউন্সিলের সভাপতি হন। স্বাধীনতা লাভের পর ১৯৭১ সালের ২৩ ডিসেম্বর তিনি নিহত হন।  [রফিকুল আহসান]