আসকারী, নবাব খাজা হাসান


আসকারী, নবাব খাজা হাসান (১৯২১-১৯৮৪)  সামরিক কর্মকর্তা, রাজনীতিক। ঢাকার নবাব পরিবারে ১৯২১ সালে হাসান আসকারীর জন্ম। তিনি নবাব হাবীবুল্লাহর জ্যৈষ্ঠ পুত্র। ১৯৪২ সালে তিনি আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.এ ডিগ্রি লাভ করেন। অতঃপর ১৯৪৪ সালে ভারতীয় সামরিক বাহিনীর ট্যাঙ্ক ব্রিগেডে কমিশন্ড অফিসার হিসেবে যোগদান করেন এবং বার্মা সেক্টরে দায়িত্বে নিয়োজিত হন। সেখানে যুদ্ধে আহত হয়ে তিনি চাকরি ত্যাগ করেন। ১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগের পর তিনি পাকিস্তান সামরিক বাহিনীতে যোগ দেন। ১৯৬১ সালে চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করে তিনি রাজনীতিতে সক্রিয় হন। হাসান আসকারী ১৯৬২ সালে মৌলিক গণতন্ত্র ব্যবস্থায় গণপরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন এবং তদানীন্তন পূর্ব-পাকিস্তান সরকারের পূর্ত ও যোগাযোগ মন্ত্রী নিযুক্ত হন। ১৯৬৫ সালের নির্বাচনে সম্মিলিত বিরোধী দলীয় প্রার্থীর নিকট পরাজিত হয়ে তিনি মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন।

খাজা হাসান আসকারী ১৯৬৮ সালে তদানীন্তন ক্ষমতাসীন কনভেনশন মুসলিম লীগের পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন। ষাটের দশকে তিনি ঢাকা ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের সভাপতি, পাকিস্তান ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের নির্বাহি কমিটির সদস্য, পূর্ব পাকিস্তান স্পোর্টস ফেডারেশনের সদস্য, স্যার সলিমুল্লাহ এতিমখানা পরিচালনা কমিটির সভাপতি এবং ধানমন্ডি স্কুলের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা এবং পাকবাহিনীর সঙ্গে সহযোগিতা তাঁকে বিতর্কিত করে তোলে। স্বাধীনতার পর তিনি পাকিস্তান চলে যান এবং সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকেন। ১৯৮৪ সালের ৯ আগস্ট তিনি করাচীতে মৃত্যুবরণ করেন।  [রিয়াজ আহমদ]