আশুরা


আশুরা  আরবি শব্দ, অর্থ  মুহররম মাসের দশ তারিখ। কারবালার মর্মান্তিক ঘটনার আগে এ দিনটি আনন্দোৎসবের মধ্য দিয়ে পালিত হতো। এর কারণ এদিন হযরত মূসা (আঃ) ও তাঁর জাতি ফেরাউনদের অত্যাচার থেকে মুক্তিলাভ করে। আরও একটি কারণ হিসেবে কথিত হয় যে, হযরত নূহ্-র (আঃ) যুগে এক ভয়ঙ্কর প্লাবনে সবকিছু ডুবে গেলে তিনি মোমিনদের নিয়ে নৌকায় ওঠেন এবং প্লাবনশেষে এ আশুরার দিনেই স্থলভাগে অবতরণ করেন।

বর্তমানে আশুরার গুরুত্ব কারবালায় ইমাম হোসেনের শাহাদত বরণের কারণে। এ দিনটিকে  শিয়া সম্প্রদায়ের লোকেরা সর্বজনীন শোকদিবস এবং সমগ্র মুহররম মাসকে চরম আত্মত্যাগের প্রতীক হিসেবে মনে করে। বাংলাদেশে প্রধানত শিয়া সম্প্রদায়ের লোকেরা আশুরা উদ্যাপন করে। ঢাকার  আহসান মঞ্জিল এর প্রধান কেন্দ্র। এখান থেকে  তাজিয়া সহকারে শোভাযাত্রা বের করা হয় এবং শোভাযাত্রার সময় ‘হায় হোসেন! হায় হোসেন!’ ধ্বনি উচ্চারণ ও বুক চাপড়িয়ে শোক প্রকাশ করা হয়। গ্রামাঞ্চলে এ উপলক্ষে  জারি গান ও নাচের আসর বসে। মেয়েরা গভীর রাত পর্যন্ত মাতম বা শোকগীতি গায়।  [শবিবর আহমদ]