আল-রাজী, আবদুল আলীম


আল-রাজী, আবদুল আলীম (১৯২৫-১৯৮৫)  আইনজীবী ও রাজনীতিক। টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর উপজেলার করটিয়ায় ১৯২৫ সালে তাঁর জন্ম। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি ইতিহাসে এম.এ এবং বি.এল ডিগ্রি লাভ করেন। লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি ইতিহাস বিষয়ে এবং পরে আইন শাস্ত্রে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন এবং লন্ডন থেকে বার-এট-ল’ সম্পন্ন করেন। তিনি কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসা থেকে ‘মোমতাজুল মোহাদ্দেসীন’ (রিসার্চ স্কলার, ডবল গোল্ড মেডালিস্ট) খেতাব লাভ করেন। ১৯৪৯ থেকে ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত তিনি লন্ডনের মুসলিম ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান ছিলেন। ১৯৫৩ সালে তিনি ঢাকা হাইকোর্টে আইন ব্যবসা শুরু করেন।

আলীম আল-রাজী ১৯৬৫ সালে আইয়ুব খানের মৌলিক গণতন্ত্র ব্যবস্থায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। সর্বজনীন ভোটাধিকার, সংসদীয় গণতন্ত্র, শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিতকরণ, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠাসহ অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা ও বাক্-স্বাধীনতার দাবিতে বরাবর তিনি পরিষদে সোচ্চার ছিলেন। তিনি ঢাকা সিটি ল’ কলেজ (১৯৫৭), নাগরপুর ডিগ্রি কলেজ (১৯৬৬) এবং তাঁর পৈতৃক গ্রাম লাউহাটিতে লাউহাটি আলীম আল-রাজী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৫৭ থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত তিনি ঢাকা সিটি ল’ কলেজের অবৈতনিক অধ্যক্ষ ছিলেন। আলীম আল-রাজী ১৯৭২ সালে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টিতে (ভাসানী) যোগ দেন এবং পরে দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন।  অবশ্য ১৯৭৪ সালে তিনি এ দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেন। ১৯৭৪-৭৫ সালে তিনি বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ছিলেন। কিছুকাল তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে অধ্যাপনা করেন।

আলীম আল-রাজীর নেতৃত্বে ১৯৭৬ সালে বাংলাদেশ পিপলস লীগ গঠিত হয়। রাজীর সম্পাদনায় লন্ডন থেকে The Oriental Times এবং টাঙ্গাইল থেকে প্রকাশিত হতো সাপ্তাহিক দূরবীন। তিনি মুসলমানের জেনে রাখা ভাল শীর্ষক একটি পুস্তক রচনা করেন। রাজী ছিলেন প্রথিতযশা ব্যঙ্গ রসাত্মক বক্তা এবং বিরল প্রতিভার অধিকারী আইন বিশারদ। ১৯৮৫ সালের ১৬ মার্চ তিনি ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন।  [মীর শামসুর রহমান]