আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ


আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ বাংলাদেশ সরকার ১৯৯৯ সনে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট অভ্যন্তরে আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ  প্রতিষ্ঠা করে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় অনুমোদিত এবং বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেণ্টাল কাউন্সিল স্বীকৃত এই চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়ে প্রতিবৎসর ১০০ জন করে ছাত্র ভর্তি করা হয় এবং ২০০৮ সাল নাগাদ এটি ঢাকা বিশববিদ্যালয়ের  অধিভুক্ত ছিল। ২০০৯ সাল থেকে উহা Bangladesh University of Professionals এর অধিভুক্ত হয়েছে। সশস্ত্র বাহিনীতে যোগদানের অঙ্গীকার মাধ্যম আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজে শতকরা ৫০% ছাত্রের শিক্ষা খরচ রেয়াত পাবার সুযোগ রয়েছে।  চিকিৎসা শিক্ষা ও  বাস্তব অভিজ্ঞতার প্রয়োজন মিটাতে রয়েছে ৮৫০ শয্যার সমন্বিত সামরিক হাসপাতাল। অদূর ভবিষ্যতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বাজেটে নির্মিতব্য ৫০০ শয্যার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল চালু হলে ওই হাসপাতালও একাজে ব্যবহূত হবে। কলেজ  ও হাসপাতাল একে অন্যের পরিপূরক হিসেবে কাজ করে এবং এ প্রতিষ্ঠান গুলোর প্রধানদের ' কমান্ডেন্ট ' বলা হয়। পাঁচ বৎসর মেয়াদী শিক্ষা কার্যক্রম সাফল্যজনকভাবে শেষ করে ছাত্ররা চিকিৎসাশাস্ত্রে এম্.বি.বি.এস্ স্নাতক ডিক্রি প্রাপ্ত হয়। পূর্ণাঙ চিকিৎসকরূপে জনগনের চিকিৎসা দেয়ার অধিকার অর্জন করতে সবাইকে ডিক্রি প্রাপ্তির পর কোনো স্বীকৃত হাসপাতালের বিভিন্ন বিভাগে এক বৎসর মেয়াদী বাস্তব অভিজ্ঞতা অর্জন করে বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেণ্টাল কাউন্সিল হতে লাইসেন্সপ্রাপ্ত হতে হয়।

[এম.কে.আই কাইয়ুম চৌধুরী]