আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কলেজ


আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কলেজ সশস্ত্র বাহিনীর বাছাইকৃত অফিসারদের বিশেষ সামরিক কোর্সে প্রশিক্ষণ দানের উদ্দেশ্যে ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের একটি শাখা হিসেবে ২০০১ সালের জানুয়ারি মাসে ঢাকার মিরপুরে প্রতিষ্ঠিত। ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের কম্যান্ড্যান্ট (মেজর জেনারেল পদমর্যাদার সেনা অফিসার) তার অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে ওয়ার কলেজের প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন। এ কলেজের কার্যক্রম পরিচালনা করেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল পদমর্যাদার একজন চীফ ইন্সট্রাক্টর। তাকে সহায়তা করেন ব্রিগেডিয়ার/ কর্নেল অথবা অনুরূপ পদমর্যাদার তিন বাহিনীর চার জন কর্মকর্তা। প্রশিক্ষণ বিষয়ক যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা ও সমন্বয় সাধনের দায়িত্ব পালন করেন জিএসও-১ (প্রশিক্ষণ) এবং প্রশাসনিক কার্যক্রমের তদারকি করেন জিএসও-১ (প্রশাসন)। এ দুজন অফিসারই সেনাবাহিনীর সদস্য ও লেফটেন্যান্ট কর্নেল পদমর্যাদার। এরা উভয়েই সরাসরি কমান্ড্যান্টের অধস্তন হিসেবে কাজ করেন।

ওয়ার কলেজ কোর্সের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হচ্ছে গবেষণা। প্রশিক্ষণ কোর্সে অংশগ্রহণকারী অফিসারদের এককভাবে ও যৌথভাবে গবেষণাকার্য সম্পন্ন করতে হয়। তাদের গবেষণায় সামরিক, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক এবং বিশেষত বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ে মৌলিক অবদান রাখতে হয়। এসব গবেষণা অভিসন্দর্ভ শ্রেণিবিন্যাস করে সংরক্ষণ করা হয়।

[শেখ আমিনুর রহমান]