আখড়া


আখড়া  বাংলাদেশ ও ভারতের পূর্বাঞ্চলের একটি গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান। অতীতের ন্যায় তত ব্যাপক না হলেও কোথাও কোথাও এর অস্তিত্ব এখনও বর্তমান।  সংস্কৃত ‘অক্ষবাট’ শব্দ থেকে উদ্ভূত আখড়া শব্দের মূল অর্থ ছিল মল্লভূমি বা ক্রীড়াভূমি। পরবর্তীকালে অর্থ সম্প্রসারণের ফলে আখড়া বলতে কুস্তি খেলার স্থান, নৈতিক ও শারীরিক প্রশিক্ষণকেন্দ্র, বৈষ্ণব সঙ্গীতকেন্দ্র ইত্যাদিকেও বোঝায়। কখনও কখনও সাধু-সন্তবৃন্দ তাঁদের বাসস্থান এবং আধ্যাত্মিক উৎকর্ষ সাধনের কেন্দ্র হিসেবেও আখড়া গড়ে তুলতেন। তরুণদের শারীরিক ও নৈতিক উৎকর্ষ সাধনের ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান হিসেবে এটি বাংলার কিছু জনগোষ্ঠীর ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানের সঙ্গেও সম্পৃক্ত ছিল। ব্রিটিশপূর্ব যুগে স্থানীয় জমিদারগণ এবং সরকারও বিভিন্ন সময়ে ভূমি মঞ্জুরির মাধ্যমে আখড়ার পৃষ্ঠপোষকতা করতেন।

বাংলায় বৈষ্ণবদের আখড়া ছিল সংখ্যায় বেশি এবং সেগুলির প্রাধান্যও ছিল সর্বাধিক। বিশ শতকের মধ্যভাগ পর্যন্ত হিন্দু অধ্যুষিত প্রায় প্রতিটি অঞ্চলেই বৈষ্ণবদের আখড়া দেখা যেত। সেগুলির মাধ্যমে প্রধানত বৈষ্ণবধর্মের চর্চা হতো। এসব আখড়ার বৈষ্ণবদের দৈনন্দিন কাজের মধ্যে একটি ছিল ভোররাতে গৃহস্থদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে গান গেয়ে তাদের ঘুম ভাঙানো। বিনিময়ে গৃহস্থরা তাদের টাকা-পয়সা, ধান-চাল ইত্যাদি দিয়ে সাহায্য করত।

উইলিয়ম বেন্টিঙ্কের শাসনামলে (১৮২৮-১৮৩৫) আখড়াদারদের দখল থেকে বিপুল পরিমাণ লাখেরাজ নিষ্কর সম্পত্তি উদ্ধার করা হয়। ফলে আখড়া পরিচালক মহলে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ঔপনিবেশিক সরকারের এ পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়ায় এটি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হলেও বিশ শতকের তৃতীয় দশকের শেষ পর্যন্ত সামাজিক ও সাংস্কৃতিকভাবে একটি প্রগতিশীল প্রতিষ্ঠান হিসেবে তা টিকে ছিল।

বিশ শতকের দ্বিতীয় দশকের প্রথম দিকে স্বদেশী আন্দোলনের কর্মী ও সন্ত্রাসীরা এ প্রতিষ্ঠানটি ব্যাপকভাবে ব্যবহার করতেন। শারীরিক ও আধ্যাত্মিক-চর্চার নামে ব্রিটিশবিরোধী রাজনীতিক কর্মীগণ  কলকাতাঢাকা ও বরিশালের বিভিন্ন আখড়া আগ্নেয়াস্ত্র ও লাঠি চালনায় প্রশিক্ষণ গ্রহণে ব্যবহার করতেন। ঢাকা অনুশীলন সমিতি-র প্রতিষ্ঠাতা  পুলিনবিহারী দাস নিজে ঢাকার একটি আখড়ার মালিক ছিলেন।

সাধক-ফকিরদের সাধনাস্থান হিসেবে বাংলাদেশে অনেক আখড়া গড়ে ওঠে। বাউলদের আখড়া এদেশে বিশেষভাবে পরিচিত।  কুষ্টিয়া জেলার ছেঁউড়িয়া গ্রামে অবস্থিত লালন ফকিরের আখড়া বিশেষ প্রসিদ্ধ। শারীরিক ও নৈতিক উৎকর্ষ সাধনে সামাজিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে আখড়া বর্তমানে প্রায় অপ্রচলিত। আজকাল আধুনিক জিমনেশিয়াম ও ক্লাব এর স্থান দখল করছে। [সিরাজুল ইসলাম]