আকিকা


আকিকা  একটি ইসলামী অনুষ্ঠান। শিশুর জন্মের পর সপ্তম দিবসে আল্লাহর উদ্দেশ্যে নবজাতকের মঙ্গলকামনায় এ অনুষ্ঠান পালিত হয়। ইসলামী বিধান অনুযায়ী এ দিন নবজাতকের নাম রাখা, তার প্রথম চুলকাটা ও কোরবানি দেওয়া সুন্নত। কোনো কারণে সপ্তম দিবসে এ অনুষ্ঠান পালন করা সম্ভব না হলে শিশু বড় হয়ে নিজেও তা করতে পারে। আকিকা উপলক্ষে কোরবানীকৃত পশুর মাংসের তিন ভাগের এক ভাগ দরিদ্র ও দুঃস্থদের মধ্যে এবং এক ভাগ আত্মীয়স্বজনদের মধ্যে বিতরণ করা হয়। বাকি এক ভাগ সন্তানের পিতা-মাতা ও নিকট আত্মীয়রা গ্রহণ করে।

নবী করিম (স.) আকিকাতে বালকের জন্য দুটি এবং বালিকার জন্য একটি মেষ বা ছাগল কোরবানি করার নির্দেশ দিয়েছেন। দাউদ-আল-জাহিরিসহ প্রাচীন যুগের কতিপয় আলেম আকিকাকে অবশ্য করণীয় (ওয়াজিব) বলে গণ্য করেছেন। কিন্তু ইমাম আবু হানিফা (র.) এটিকে মুস্তাহাব বা পুণ্যজনক বলে বিবেচনা করেছেন।

শিশুর কর্তিত কেশকেও আকিকা নামে অভিহিত করা হয়। শরী’আতে এ কর্তিত কেশের সমপরিমাণ রৌপ্য বা স্বর্ণ দান করার নির্দেশ আছে। আকিকা আরব মরুভূমিতে সর্বাধিক অনুষ্ঠিত উৎসবসমূহের অন্যতম। সমগ্র মুসলিম সমাজেই এ প্রথার প্রচলন আছে। বাংলাদেশে অবস্থাপন্ন মুসলিম পরিবারে খুব জাঁকজমকের সঙ্গে আকিকা অনুষ্ঠিত হয়।  [সৈয়দ আশরাফ আলী]