আইনব্যবস্থা


আইনব্যবস্থা  বাংলাদেশের আইনব্যবস্থা কয়েক শতক ধরে ক্রমান্বয়ে গড়ে উঠেছে। আঠারো শতকে ব্রিটিশ শাসন প্রতিষ্ঠার পূর্বে বাংলা অঞ্চল মুগল শাসনাধীনে ছিল। তেরো শতকের সূচনা থেকে তুর্ক-আফগান সুলতানগণ এদেশ শাসন করেন এবং সতেরো শতকের প্রথমদিকে মুগলরা তাদের কাছ থেকে  ক্ষমতা দখল করে। এ অঞ্চল খ্রিস্টপূর্ব ৬ বা ৭ শতক থেকে আর্যদের শাসনাধীন ছিল। তুর্ক-মুগল শাসনামলে এ দেশটি সুবাহ বাংলার পূর্বাংশ এবং ব্রিটিশ শাসনে বাংলা প্রদেশের পূর্বাংশ হিসেবে পরিচিতি লাভ করে।

আর্য আইনব্যবস্থা  ভারতে আগমনের পর আর্যরা পারস্পরিক আচরণের ক্ষেত্রে কয়েকটি নিয়মাচার মেনে চলত।  প্রতিটি সামাজিক শ্রেণির আচরণবিধির সাথে অবশ্য পালনীয় ধর্মীয় অনুশাসন যুক্ত ছিল এবং আচরণবিধি ভঙ্গ করলে প্রায়শ্চিত্ত করতে হতো। আচরণবিধি ভঙ্গকারীদের প্রায়শ্চিত্তে পৌরহিত্য করতেন পুরোহিত শ্রেণির ব্রাহ্মণ। সেসব আচরণবিধিকে ‘ধর্ম’ বলা হতো এবং তাতে নির্ধারিত ছিল কিছু কর্তব্য ও দায়িত্ব। কালক্রমে জনগণকে তাদের আচরণবিধি পালনে বাধ্যকরণ রাজধর্ম হয়ে দাঁড়ায় এবং শাস্ত্রজ্ঞ ব্রাহ্মণরা আচারণবিধি বলবৎ রাখার ব্যাপারে রাজাকে পরামর্শ দান করতেন। উক্ত আইনগত দায়িত্ব এবং এদের লঙ্ঘনের জন্য মামলা দায়ের করা হতো। রাজা এবং তাঁর নিয়োজিত বিচারকগণ এ জাতীয় মামলা নিষ্পত্তি করতেন। রাজার আদেশ ও আইন মেনে চলা প্রজাদের জন্য বাধ্যতামূলক ছিল। সামরিক প্রধান হিসেবে তার নির্দেশ মেনে চলতে জনগণকে বাধ্য করার ক্ষমতা তার ছিল। আইনভঙ্গকারীদের দন্ড  প্রদানের মাধ্যমে রাজা সামাজিক শৃঙ্খলা রক্ষা করতেন। রাজার শিক্ষণীয় বিষয়গুলোর অপরিহার্য অংশ ছিল দন্ডনীতি বা শাস্তির নিয়মাবলি। কিন্তু  প্রতিষ্ঠিত ধর্মীয় বিধান অনুসারে  রাজাকে  শাস্তি বা  দন্ড প্রয়োগ করতে হতো।

বঙ্গীয় অঞ্চল আর্যদের শাসনাধীনে আসার পর প্রচলিত স্থানীয় সামাজিক প্রথা ও রীতিপদ্ধতির ভিত্তিতে আর্য আইন সংশোধিত হয়।  পাল শাসনামলে প্রধান বিচারককে বলা হতো মহাদন্ডনায়ক বা ধর্মাধিকার এবং চন্দ্র, বর্মণ ও সেন শাসনামলে তাকে বলা হতো মহাধর্মাধ্যক্ষ। সে আইন ব্যবস্থা হিন্দু আইন হিসেবেও পরিচিত ছিল। গৌতম, বুদ্ধায়ন, অপস্তম্ব, হরিত, বশিষ্ঠ, বিষ্ণু, মনু, যাজ্ঞবল্ক্য, নারদ, বৃহস্পতি, কাত্যায়ন প্রমুখের সংকলিত আইন ছিল নতুন আইন ব্যবস্থার উৎস। বাংলায় জীমূতবাহনের  দায়ভাগ সকল হিন্দু-আইনের সারসংকলন। উত্তরাধিকার এবং যৌথ-সম্পত্তি বণ্টনের ক্ষেত্রে এ আইন অনুসৃত হতো। ভারতের অবশিষ্ট অংশে এ ক্ষেত্রে বিজ্ঞানেশ্বরের মিতাক্ষরা অনুসরণ করা হতো। মিতাক্ষরা ছিল যাজ্ঞবল্ক্যের আইনকোষের একটি টীকা বা ভাষ্য।

তুর্ক-আফগান আইনব্যবস্থা  ১২০৪ সালে  বখতিয়ার খলজী কর্তৃক বঙ্গবিজয়ের পর হিন্দু আইনের  প্রয়োগ হিন্দুদের ব্যক্তি-আইনে সীমিত হয়ে পড়ে এবং বিচার প্রশাসনে ইসলামী আইনের নীতিসমূহ  প্রয়োগ করা হয়। বখতিয়ার খলজীর বঙ্গবিজয়ের পর থেকে মুগল অধিকারের পূর্ব পর্যন্ত স্বাধীন সুলতানদের দ্বারা এদেশ শাসিত হয়েছে। কাজেই বাংলার প্রশাসন দিল্লি সালতানাতের আদলে গড়ে তোলা হয়েছিল। সুলতান শুধু সামরিক ও বেসামরিক  প্রশাসনেরই প্রধান নন,  বরং একই সঙ্গে ছিলেন বিচারব্যবস্থারও প্রধান। দেশটি বিভিন্ন প্রদেশে বিভক্ত ছিল, যা  ইকলিম বা  আরসা হিসেবে পরিচিত ছিল। প্রতিটি প্রদেশ একজন শাসনকর্তার অধীন ছিল, যিনি শুধু স্থানীয় বেসামরিক প্রশাসনের নন, সেনাবাহিনীরও প্রধান ছিলেন এবং এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতেন। সুলতান প্রতিটি বিভাগে ইসলামী আইন অনুযায়ী বিচার প্রশাসনের জন্য একজন বিচার বিভাগীয়  কর্মকর্তা বা  কাজী নিয়োগ করতেন। সুলতান প্রতিটি শহরের জন্যও একজন কাজী নিয়োগ করতেন। কাজী বিবদমান দুপক্ষের  বিচার সমাধা করতেন, অন্যদিকে  সুলতান বিদ্রোহ ও ধর্মনিন্দা বিষয়ক অভিযোগের  বিচার    করতেন। বিচারব্যবস্থার  প্রধান হিসেবে সুলতান কাজীর গৃহীত সিদ্ধান্ত  পুনর্বিবেচনা করতে পারতেন এবং তা সংশোধনের ক্ষমতা তাঁর ছিল। সম্ভবত কাজীর পদ উত্তরাধিকারক্রমিক ছিল, তবে এবিষয়ে কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায় না। সুলতান ছিলেন সকল ক্ষমতার উৎস এবং তার দ্বারা নিয়োজিত কর্মকর্তাদের মাধ্যমে তার আইন জারি ও প্রয়োগ করার  ক্ষমতা ছিল। তার ক্ষমতায় একমাত্র সীমাবদ্ধতা ছিল ইসলামী আইনবিধি, যা তিনি মান্য করতেন।  উলামা নামে পরিচিত ইসলামী আইনে পন্ডিতগণ সুলতানের ওপর যথেষ্ট প্রভাব বিস্তার করতেন।  সুলতান সাধারণভাবে দেওয়ানিও রাজস্ব প্রশাসন সম্পর্কিত আইন জারি করতেন।  গ্রামবাসীদের মধ্য থেকে  মনোনীত ব্যক্তিদের নিয়ে গঠিত পঞ্চায়েত  গ্রামবাসীদের ছোটখাট বিরোধের  মীমাংসা করত।  অমুসলিমগণ তাদের মধ্যে সংঘটিত বিরোধের ক্ষেত্রে তাদের ধর্মভিত্তিক আইন দ্বারা পরিচালিত হতো।  ইসলামী আইন যে হিন্দু-আইনের স্থান পুরাপুরি দখল করেনি এতে তার প্রমাণ পাওয়া যায়।

মুগল আইনব্যবস্থা  তুর্ক-আফগানদের প্রবর্তিত আইনব্যবস্থা মুগল আমলে পরিবর্তিত হয় নি, বরং সুসংহত হয়েছে। দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলার বিচারের জন্য কয়েকটি গ্রাম সমন্বয়ে গঠিত প্রতিটি পরগনায় একজন কাজী নিয়োজিত থাকতেন। সিকদার আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতেন, আমিন রাজস্ব নির্ধারণ এবং ভূমি ও রাজস্ব সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তি করতেন এবং  আমিল রাজস্ব সংগ্রহ করতেন। অনুরূপভাবে প্রতিটি জেলায় একজন কাজী নিযুক্ত থাকতেন, যিনি জেলা শহরের দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলাসমূহের  শুনানি এবং পরগনা-কাজীদের সিদ্ধান্তসমূহের উপর আপিলের শুনানি গ্রহণ করতেন।  ফৌজদার জেলার আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতেন এবং জেলার রাজস্ব প্রশাসনের  প্রধান  ছিলেন। মালগুজার ছিলেন জেলার ভূমিরাজস্ব ব্যবস্থার প্রধান এবং তিনি ভূমি ও রাজস্ব সংক্রান্ত বিরোধও নিষ্পত্তি করতেন। আমিনদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার ক্ষমতাও তার ছিল। প্রাদেশিক রাজধানীর দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলা নিষ্পত্তি করতেন প্রধান বিচারক কাজী-উল-কুজাত। তিনি জেলা-কাজীদের সিদ্ধান্তের উপর আপিলের শুনানিও গ্রহণ করতেন। কাজীগণ ইসলামী আইনের নীতিমালা অনুযায়ী বিচারকার্য পরিচালনা করতেন। অমুসলিমদের ব্যক্তি-আইন প্রয়োগের মাধ্যমে কাজী তাদের মধ্যকার বিরোধ মীমাংসা করতেন। ইসলামী আইন অনুসারে মামলা পরিচালনায় কাজী একজন মুফতীর সাহায্য গ্রহণ করতেন এবং অমুসলিমদের ব্যক্তি-আইনে বিশেষজ্ঞ ব্যক্তি অমুসলিমদের বিরোধ নিষ্পত্তির ব্যাপারে কাজীকে সাহায্য করতেন। পরগনার সিকদার এবং জেলার ফৌজদার কেবল শান্তি ভঙ্গকারী অপরাধীদের শাস্তি দিতে পারতেন। নাজিম (প্রাদেশিক শাসনকর্তা) কাজীপ্রদত্ত মৃত্যুদন্ড বা অঙ্গচ্ছেদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করতে পারতেন। প্রাদেশিক দেওয়ানের হাতে জেলা মালগুজারের সিদ্ধান্ত সংশোধন করার ক্ষমতা ছিল। মুগল শাসনের সময় গ্রাম পঞ্চায়েতের ক্ষমতা অক্ষুণ্ণ রাখা হয়। সরকারি প্রতিনিধি হিসেবে রাজস্ব সংগ্রহকারী জমিদারদের হাতে কোনো বিচারক্ষমতা না থাকলেও মুগল শাসনের পতনের যুগে জমিদারগণ বিচারক্ষমতা করায়ত্ত করে। মুগল সম্রাটগণ ধর্মনিরপেক্ষ বিষয়ে ফরমান জারি করে আইন প্রণয়ন করতেন, যা মান্য করা ছিল বাধ্যতামূলক। কিন্তু তাঁরা ইসলামী নীতির পরিপন্থী কোনো আইন প্রণয়ন করতেন না; বরং মুগল সম্রাট আওরঙ্গজেব সুন্নি মতাবলম্বীদের অনুসৃত ইসলামী আইনের বিধানসমূহ সংকলনের জন্য একটি কমিশন নিয়োগ করেন। এ সংকলন ‘ফতোয়া-ই-আলমগীরী’  নামে পরিচিত, যা সুন্নি মুসলমানরা ব্যক্তিগত আইনের ক্ষেত্রে অদ্যাবধি অনুসরণ করে থাকে।

কোম্পানির আইনব্যবস্থা  ১৭৫৭ সালে পলাশী যুদ্ধের পর প্রাদেশিক শাসনকর্তা বা নাজিমের ক্ষমতা  হ্রাস পায়। তবে ১৭৬৫ সালে দেওয়ানি লাভের পূর্ব পর্যন্ত  ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি শাসনক্ষমতা গ্রহণ করে নি। ১৭৭২ সালে কোম্পানির গভর্নর  ওয়ারেন হেস্টিংস প্রথমবারের মতো প্রতি জেলায় রাজস্ব  সংগ্রহ ও দেওয়ানি বচার প্রশাসনের জন্য ইংরেজ কালেক্টর নিয়োগ করেন। কালেক্টরগণ প্রাপ্ত ক্ষমতাবলে মুসলিম উলামা এবং হিন্দু পন্ডিতদের সাহায্যে বিবদমান পক্ষসমূহের বিচার করতেন, তবে জেলার ফৌজদারি বিচার বিষয়ে কাজীর ক্ষমতায় কোনো হস্তক্ষেপ করতেন না। কালেক্টরদের হাতে পুলিশ বাহিনী নিয়ন্ত্রণের এবং অপরাধীকে গ্রেপ্তারের ক্ষমতা ছিল। গ্রেপ্তারকৃতদের বিচারের জন্য কাজীর ফৌজদারি আদালতে প্রেরণ করা হতো।  লর্ড কর্নওয়ালিস কালেক্টরদের বিচারক্ষমতা রহিত করেন এবং ইংরেজ কর্মকর্তাদের জেলা দেওয়ানি আদালতে বিচারক হিসেবে নিয়োগ দেন। তিনি কাজীর ফৌজদারি বিচার ক্ষমতা অক্ষুন্ন রেখে প্রতি বিভাগে সার্কিট দায়রা আদালত প্রতিষ্ঠা করেন। এ ধরনের দায়রা আদালতে ইংরেজ কর্মকর্তাগণ কাজী এবং মুফতীর সহায়তায় গুরুতর মামলা নিষ্পত্তি করতেন। জেলা দেওয়ানি আদালতের সিদ্ধান্তের ওপর আপীল গ্রহণের জন্য তিনি বিভাগীয়  আদালত স্থাপন করেন। এসকল আদালতে সার্কিট দায়রা আদালতের নিয়মে বিচারক নিয়োগ করা হতো। বিভাগীয় আদালতসমূহ মুসলিম উলামা এবং হিন্দু পন্ডিতদের সহায়তায় মামলা নিষ্পত্তি করত। জেলা দেওয়ানি আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে বিচারকগণ ছোটখাটো অপরাধের বিচার করতেন। মুন্সেফগণ ছোটখাটো দেওয়ানি মামলা নিষ্পত্তি করতেন। লর্ড হেস্টিংস কালেক্টরদের হাতে ম্যাজিস্ট্রেটের ক্ষমতা অর্পণ করেন এবং সদর আমিন নামে স্থানীয় বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের জেলা দেওয়ানি আদালতে নিয়োগ দান করেন। সূচনাপর্বে গভর্নর জেনারেল ও তাঁর কাউন্সিল সদস্যবর্গ এবং পরবর্তীকালে ঊর্ধ্বতন ইংরেজ কর্মকর্তাদের নিয়ে গঠিত সদর দেওয়ানি আদালত জেলা ও বিভাগীয় দেওয়ানি আদালতের সিদ্ধান্তের উপর আপিলের শুনানি গ্রহণ করত। সদর দেওয়ানি আদালতের বিচারকদের নিয়ে গঠিত সদর নিজামত আদালত সার্কিট দায়রা আদালতের রায়ের ওপর আপিলের শুনানি গ্রহণ করত। ১৭৭৩ সালের  রেগুলেটিং অ্যাক্ট গভর্নর জেনারেল-ইন-কাউন্সিলকে দেশ শাসনকল্পে বিধি প্রণয়নের ক্ষমতা প্রদান করে।

১৭৭৪ সালে ইংল্যান্ডের রাজা কলকাতায় একটি সুপ্রিম কোর্ট প্রতিষ্ঠা করেন। ছোটখাটো দেওয়ানি মামলা ব্যতীত কলকাতা প্রেসিডেন্সি শহরে দায়েরকৃত দেওয়ানি, ফৌজদারি, নৌ-চলাচল, গির্জা বা যাজক সংক্রান্ত মামলাসমূহ নিষ্পত্তির জন্য সুপ্রিম কোর্ট স্থাপন করা হয়। সুপ্রিম কোর্ট অন্যান্য দেওয়ানি মামলাও নিষ্পত্তি করত এবং গ্র্যান্ড জুরি ও পেটি জুরির সহায়তায় গুরুতর অপরাধে অভিযুক্তদের বিচার করতেন। ইংল্যান্ডের রাজার আদালতের মতো সুপ্রিম কোর্টের রিট জারির এবং নিম্ন আদালতসমূহকে তত্ত্বাবধান ও নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতাও ছিল। ১৭৮১ সালে সেটলমেন্ট অ্যাক্ট দ্বারা সুপ্রিম কোর্টের রিট জারি করার ক্ষমতা খর্ব করে প্রেসিডেন্সি শহর এলাকায় সীমাবদ্ধ করা হয়। কলকাতাবাসী ও ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিতে চাকুরিরত ইউরোপীয়দের ওপর প্রেসিডেন্সি শহরের আদালতগুলোর এখতিয়ার ছিল এবং তাদের ক্ষেত্রে এসকল আদালত ইংরেজ আইন অনুযায়ী বিচারকার্য পরিচালনা করত।

কিন্তু কোম্পানির স্থাপিত আদালতগুলো প্রবিধান দ্বারা এবং পরবর্তীকালে আইন প্রণয়নকারী সংস্থা হিসেবে গভর্নর জেনারেল-ইন-কাউন্সিল কর্তৃক প্রণীত আইন দ্বারা সংশোধিত ইসলামী আইন অনুসারে বিচারকার্য পরিচালনা করত।  লর্ড উইলিয়ম বেন্টিঙ্ক জেলা দেওয়ানি আদালতে মুখ্য সদর আমিনের পদ সৃষ্টি করেন। মুখ্য সদর আমিন জেলা বিচারকদের সকল ক্ষমতা প্রয়োগ করার অধিকারী হন এবং তাকে মুন্সেফ ও অতিরিক্ত বিচারকদের সিদ্ধান্তের ওপর আপিলের শুনানি গ্রহণ করার ক্ষমতা প্রদান করা হয়। বেন্টিঙ্ক সার্কিট দায়রা আদালত এবং বিভাগীয় আদালতের বিলুপ্তি ঘটান। তিনি বিভাগীয় কমিশনারদের নিয়োগ দেন যারা কালেক্টরদের কার্যাবলির তদারকি ছাড়াও গুরুতর অপরাধের দায়ে অভিযুক্তদের বিচারের জন্য সেশনে বসবার ক্ষমতা লাভ করেন। তিনি একটি প্রবিধানও জারি করেন, যার দ্বারা গভর্নর জেনারেলকে জেলা বিচারকদের গুরুতর অপরাধের বিচার করার অধিকার দানের ক্ষমতা প্রদান করা হয়। জেলা ও দায়রা বিচারকদের ঐসব মামলার ক্ষেত্রে কাজী ও  মুফতীদের  প্রদত্ত ফতোয়া বাতিলের অধিকার দেয়া হয়, যেসব মামলায় বিচারকরা জুরি বা অ্যাসেসরদের মতামত গ্রহণ করেছেন। জুরি বা অ্যাসেসরদের সহায়তায় গুরুতর অপরাধের বিচার করার জন্য ক্রমান্বয়ে জেলা বিচারকদেরও দায়রা বিচারকে পরিণত করা হয়। ১৮৩৩ সালের চার্টার আইনবলে গভর্নর জেনারেল-ইন-কাউন্সিল একজন আইন সদস্যসহ আইন পরিষদে রূপান্তরিত হয় এবং প্রবিধানের পরিবর্তে  আইন  প্রণয়নের ক্ষমতা প্রাপ্ত হয়। আইনসমূহ বিধিবদ্ধ করার জন্য খ্যাতনামা আইনজ্ঞদের সমন্বয়ে আইন কমিশন গঠিত হয়। এ সকল পদক্ষেপের দরুন ধীরে ধীরে ইংল্যান্ডের প্রচলিত আইন ইসলামী আইনকে প্রতিস্থাপন করতে থাকে।

ব্রিটিশ আইনব্যবস্থা  ১৮৫৭ সালের সিপাহি বিদ্রোহের পর রানী ভিক্টোরিয়া এক ঘোষণার মাধ্যমে কোম্পানির নিকট থেকে এদেশের শাসনভার গ্রহণ করেন। আইন কমিশনগুলির সুপারিশের ভিত্তিতে ভারত শাসন আইনের আওতায় আইন বিধিবদ্ধ করার বিষয়টি অতঃপর ত্বরান্বিত হয়। ১৮৬২ সালে সদর দেওয়ানি আদালত, সদর  নিজামত আদালত এবং সুপ্রিম কোর্টকে সংযুক্ত করে কলকাতায়  হাইকোর্ট প্রতিষ্ঠিত হয়। একই সময়ে ইসলামী আইনব্যবস্থার পরিবর্তে ১৮৬২ সালে কিছু সংশোধনীসহ  ইংরেজদের প্রচলিত আইনব্যবস্থা প্রবর্তন করা হয়। তবে এক্ষেত্রে হিন্দু ও মুসলিম সম্প্রদায় তাদের নিজ নিজ ধর্ম অনুযায়ী ব্যক্তি-আইন অনুসরণ করার সুযোগ লাভ করে। ১৮৬৪ সালে কাজী, মুফতী, মৌলবি ও পন্ডিত নামীয় পদসমূহ বিলোপ করা হয়। অধস্তন আদালতের বিচার সংক্রান্ত কর্মকর্তাগণ আইনে ডিগ্রিধারী, আইন ব্যবসায়ে নিয়োজিত আইনজীবী ও ভারতীয় সিভিল সার্ভিসের (আইসিএস) প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে নিযুক্ত হতে থাকেন। আইন ব্যবসায়ে নিয়োজিত ব্যারিস্টার, অ্যাডভোকেট এবং জেলা বিচারকদের মধ্য থেকে হাইকোর্টের বিচারকরা নিয়োগ লাভ করতেন। নিম্নতম দেওয়ানি আদালত এবং মহকুমা সদরে অবস্থিত ফৌজদারি আদালত পরিচালনা করতেন যথাক্রমে মুন্সেফ ও ম্যাজিস্ট্রেট। শাস্তি প্রদানের ক্ষেত্রে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণির ক্ষমতাসম্পন্ন  তিন ধরনের ম্যাজিস্ট্রেট ছিলেন। উপর্যুক্ত আদালতের ঊর্ধ্বে ছিল জেলা সদরে দেওয়ানি বিষয়ে জেলা জজ, অতিরিক্ত জেলা জজ ও অধস্তন জজের আদালত এবং ফৌজদারি বিষয়ে ছিল অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, দায়রা জজ, অতিরিক্ত দায়রা জজ ও সহকারি সেশন জজের আদালত। যিনি দেওয়ানি মামলায় জেলা জজ এবং অতিরিক্ত ও অধস্তন জজ হিসেবে সিদ্ধান্ত দিতেন তিনিই দায়রা আদালতে বসতেন এবং দেওয়ানি মামলাসমূহ নিষ্পত্তি করতেন। জেলা আদালতের সিদ্ধান্তের ওপর  হাইকোর্টে ও হাইকোর্টের সিদ্ধান্তের ওপর ইংল্যান্ডস্থ প্রিভি কাউন্সিলে আপিলের ব্যবস্থা ছিল। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের পূর্ব পর্যন্ত  সংশোধিত ইংরেজ আইনব্যবস্থা এদেশে চালু ছিল। ইংরেজ আইনব্যবস্থা চালু হওয়ার পূর্বে ব্যাপকভাবে আইন প্রণয়ন নিষ্পন্ন হয়। এভাবেই সাক্ষ্য আইন ১৮৫৩ ও ১৮৫৫, ফৌজদারি কার্যবিধি ১৮৬১, স্মল কজেস কোর্ট অ্যাক্ট ১৮৬০, দন্ডবিধি ১৮৬০,  দেওয়ানি কার্যবিধি ১৮৫৯,  চুক্তি আইন ১৮৮৫, সুখাধিকার আইন ১৮৮২ ও দেওয়ানি আদালত আইন ১৮৭১ এবং ইংরেজ আইনের অন্তর্ভুক্ত নীতিমালা সমন্বয়ে অসংখ্য আইন প্রণীত হয়। পরবর্তীকালে ফৌজদারি কার্যবিধি, দেওয়ানি  কার্যবিধি, দেওয়ানি আইন, স্মল কজেস কোর্ট অ্যাক্ট, এবং সাক্ষ্য আইন সংশোধিত হয়।

পাকিস্তানের আইনব্যবস্থা  প্রিভি কাউন্সিলের এখতিয়ার এবং ১৯৩৫ সালের ভারত শাসন আইনে স্থাপিত ফেডারেল  আদালতের ওপর তার প্রয়োগ ব্যবস্থা বিলোপ ব্যতীত পাকিস্তান আমলে আদালতের গঠন ও কাঠামোতে কোনো পরিবর্তন ঘটে নি। ১৯৩৫ সালের আইনের একটি সংশোধনী দ্বারা  হাইকোর্টকে রিট জারির ক্ষমতা প্রদান করা হলেও পরবর্তীকালে ফেডারেল আদালত এ সংশোধনী বাতিল ঘোষণা করে। ১৯৫৬ সালে পাকিস্তানের সংবিধান হাইকোর্টকে কেবল মৌলিক অধিকার কার্যকর করার জন্য নয়, সরকারি প্রতিষ্ঠানের কোনো কার্যকে আইনগত ক্ষমতাবহির্ভূত এবং আইনগতভাবে অকার্যকর ঘোষণার জন্যও রিট জারির ক্ষমতা প্রদান করে। ফেডারেল আদালতের পরিবর্তে সুপ্রিম কোর্টকে হাইকোর্টের সিদ্ধান্তের ওপর আপিলের শুনানি গ্রহণের ক্ষমতা ছাড়াও মৌলিক অধিকার কার্যকর করার জন্য রিট জারির অতিরিক্ত ক্ষমতা প্রদান করা হয়। সুপ্রিমকোর্ট ও হাইকোর্ট মৌলিক অধিকারের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ যেকোন আইন বিলুপ্ত ঘোষণা করতে পারত। ব্রিটিশ আমলে প্রণীত আইনসমূহ সামান্য সংশোধনসহ অব্যাহত ছিল। ১৯৫৮ সালে সামরিক আইন জারির পর সংবিধান বাতিল হয়ে যায়। ১৯৫৯ সালে  জুরী পদ্ধতি বিলুপ্ত এবং ১৯৬১ সালে স্থাপিত হয় ক্ষুদ্র দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলা নিষ্পত্তির জন্য ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিবদমান পক্ষদ্বয়ের প্রতিনিধি নিয়ে সালিশ আদালত। ১৯৬২ সালের সংবিধান ১৯৬৪ সালে সংশোধিত হলে হাইকোর্ট রিট জারি ছাড়াও মৌলিক অধিকার কার্যকর করার ক্ষমতা এবং সুপ্রিম কোর্ট হাইকোর্টের সিদ্ধান্তের উপর আপিলের শুনানি গ্রহণের ক্ষমতা লাভ করে। কিন্তু ১৯৬৯ সালে দ্বিতীয় বার সামরিক আইন জারি হওয়ার পর সংবিধান আবারও রদ হয়ে যায়।

বাংলাদেশের আইনব্যবস্থা  ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর প্রথম পর্যায়ে আইন ও বিচার ব্যবস্থায় কোনো পরিবর্তন আসে নি। ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের সংবিধান কার্যকর হওয়ার পর হাইকোর্ট বিভাগ ও আপিল বিভাগ নিয়ে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট প্রতিষ্ঠিত হয়। সর্বোচ্চ আদালত হিসেবে হাইকোর্ট বিভাগ অধস্তন আদালত থেকে আগত আপিলের শুনানি ও পুনর্বিচার মামলা গ্রহণের ক্ষমতা লাভ করে। এ ছাড়া রিট হিসেবে এ বিভাগকে মৌলিক অধিকার কার্যকর করার জন্য আদেশ ও নির্দেশনা জারি করা এবং রিটের আওতায় অন্যান্য ছাড় প্রদানের ক্ষমতাও দেয়া হয়। আপিল বিভাগের রয়েছে হাইকোর্ট ডিভিশন এবং যেকোন সংবিধির অধীন অন্যান্য সংস্থার সিদ্ধান্তের উপর আপিলের শুনানি গ্রহণ করার ক্ষমতা। হাইকোর্ট বিভাগে রয়েছে অধস্তন আদালত ও  ট্রাইব্যুনাল তত্ত্বাবধান ও নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা। সুপ্রিম কোর্ট হলো কোর্ট-অব-রেকর্ড এবং তা সুপ্রিম কোর্টের  অবমাননা  অথবা এ কোর্টের অধস্তন আদালতের অবমাননার জন্য যে কাউকে শাস্তি দিতে পারে। আপিল বিভাগ ঘোষিত আইনগুলো হাইকোর্ট বিভাগের জন্য বাধ্যতামূলক এবং উভয় বিভাগের যেকোনটির ঘোষিত আইন সকল অধস্তন আদালতের জন্য বাধ্যতামূলক। হাইকোর্ট বিভাগ মৌলিক অধিকারের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ যেকোন আইন বাতিল ঘোষণা করতে পারে। প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতি সুপ্রিম কোর্টের সঙ্গে পরামর্শক্রমে অধস্তন আদালতসমূহের বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের নিয়ন্ত্রণ ও শৃঙ্খলা বজায় রাখেন। শ্রমবিরোধ নিষ্পত্তির জন্য শ্রম আদালত এবং শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল রয়েছে। সরকারি কর্মচারীদের চাকুরি সম্পর্কিত বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল ও প্রশাসনিক আপিল ট্রাইব্যুনাল আছে। একইভাবে আয়কর সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য আয়কর আপিল ট্রাইব্যুনাল এবং শুল্ক, আবগারি শুল্ক ও ভ্যাট সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য শুল্ক, আবগারি শুল্ক ও ভ্যাট আপিল ট্রাইব্যুনাল, আর পরিত্যক্ত সম্পত্তি সম্পর্কিত বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য কোর্ট অব সেটেলমেন্ট। এ ছাড়া  সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে  দুর্নীতি  মামলার জন্য রয়েছেন বিশেষ বিচারক। ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে ফৌজদারি মামলার বিচারের জন্য আছে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল এবং শিশু ও নারীর বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধ বিচারের জন্য নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত। নির্বাচনী বিরোধসমূহ  নিষ্পত্তির জন্য রয়েছে  বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত  নির্বাচন ট্রাইব্যুনাল। অন্যান্য ট্রাইব্যুনালও একই পদ্ধতি অনুসরণ করে।

পারিবারিক বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য সহকারী বিচারকদের সমন্বয়ে পারিবারিক আদালত গঠন করা হয়েছে। ব্যাঙ্ক ও অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের আর্থিক দাবি নিষ্পত্তির জন্য গঠিত অর্থঋণ আদালতে বিচারকগণ সভাপতিত্ব করে থাকেন। জেলা অথবা অতিরিক্ত জেলা বিচারকদের সভাপতিত্বে গঠিত দেউলিয়া আদালতে ঋণখেলাপি হওয়ায় দেউলিয়া ঘোষণার ব্যবস্থা রয়েছে। অনূর্ধ্ব ষোল বছর বয়সী কিশোর-কিশোরীদের অপরাধের বিচার করার জন্য দায়রা বিচারক ও ম্যাজিস্ট্রেটদের নিয়ে কিশোর  আদালত গঠিত হয়েছে। কিশোর আদালত শিশু আইনের বিশেষ বিধিসমূহ অনুসরণ করে। সেনাবাহিনী আইন, বিমানবাহিনী আইন ও নৌবাহিনী অধ্যাদেশের ধারাবলে কোর্ট মার্শাল আদালতে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের দ্বারা সংঘটিত অপরাধসমূহের বিচার করা হয়। এ সকল কোর্টের সিদ্ধান্ত সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ করা যায় না। ছোটখাটো দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলা নিষ্পত্তির জন্য  গ্রামে গ্রামীণ আদালত এবং শহর এলাকায় পৌর সালিশ বোর্ড রয়েছে। অধস্তন ভূমি রাজস্ব কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে আপিল গ্রহণের সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষ হলো ভূমি আপিল বোর্ড। এ ছাড়া জাতীয় রাজস্ব বোর্ড সর্বোচ্চ পর্যায়ে কর, শুল্ক, আবগারি শুল্ক ও ভ্যাট সংক্রান্ত  মামলাসমূহ নিষ্পত্তি করে।

ব্রিটিশ আমলে প্রণীত অধিকার ও  দায়িত্ব সম্পর্কিত প্রায় সকল মূল আইন মাঝে মাঝে সংশোধিত হয়ে এখনও কার্যকর  রয়েছে। ফৌজদারি কার্যবিধিতে আনীত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সংশোধনী হলো অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে আপাতদৃষ্টিতে মামলা গ্রহণ করে দায়রা  আদালতে বিচারের জন্য প্রেরণ করা হবে কিনা তা ম্যাজিস্ট্রেট দ্বারা তদন্তের বিধানের এবং নির্ধারক বা অ্যাসেসর দ্বারা দায়রা মামলার বিচার সম্পন্ন করার বিধানের বিলুপ্তি। বাংলাদেশের আইনব্যবস্থা মূলত একটি প্রচলিত আইনব্যবস্থা। কেবল ব্যতিক্রম হলো, জাতীয় সংসদ কর্তৃক প্রণীত আইন সুপ্রিম কোর্ট শুধু ব্যাখ্যাই নয়, বাতিল করতে এবং নাগরিকদের মৌলিক অধিকার কার্যকর করতে পারে। আইনব্যবস্থা ইংল্যান্ডের প্রচলিত আইনের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হলেও বাংলাদেশের অধিকাংশ আইন সংবিধিবদ্ধ আইন, যা আইনসভা প্রণয়ন করেছে এবং উচ্চতর আদালত ব্যাখ্যা করেছে। পদ্ধতিগত আইনসমূহ (ফৌজদারি আইন) প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক মামলার সুযোগ করে দেয়, যে মামলায় ফরিয়াদিকে অভিযুক্ত ব্যক্তির অপরাধ প্রমাণ করতে হয়। কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া অভিযুক্ত ব্যক্তির ওপর কোনো কিছু প্রমাণের দায়িত্ব বর্তায় না এবং বিচারে অপরাধী সাব্যস্ত না হওয়া পর্যন্ত তাকে নির্দোষ বলে ধরে নেয়া হয়। পক্ষান্তরে, দেওয়ানি মামলায় উভয় পক্ষের ওপরই প্রমাণের দায়িত্ব বর্তায়। উপরন্তু আইনসভা, নির্বাহি বিভাগ ও বিচার বিভাগের মধ্যে ক্ষমতার বিভাজন রয়েছে। সুপ্রিম কোর্ট অন্যান্য অঙ্গসংস্থা থেকে শুধু স্বাধীনই নয়, বরং সংবিধানের অভিভাবক হিসেবেও কাজ করে। সংসদ আইন প্রণয়ন করতে পারে, কিন্তু তা বেশকিছু মৌলিক অধিকারসহ সংবিধানের ধারার সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ হতে পারে না। সুতরাং বাংলাদেশ সংসদের আইন প্রণয়ন ক্ষমতা ব্রিটিশ পার্লামেন্টের ক্ষমতার মতো অসীম নয়।

বাংলাদেশের মৌলিক আইন হলো সময়ে সময়ে সংশোধিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের  সংবিধান, ১৯৭২। ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত  সংবিধানে ১৩টি সংশোধনী আনা হয়েছে। দেশের সকল আইন হলো নির্বাচিত সংসদ দ্বারা প্রণীত অধীন আইন, যা সংবিধানের মতাদর্শের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ। আইনসভা  প্রণীত ও বর্তমানে কার্যকর আইনসমূহ জীবনের প্রায় সকল ক্ষেত্র নিয়ন্ত্রণ করছে। সাধারণভাবে নির্বাহি কর্তৃপক্ষ ও সংবিধিবদ্ধ কর্পোরেশনগুলো কোনো আইন প্রণয়ন করতে পারে না, তবে আইনসভা  দ্বারা  ক্ষমতাপ্রাপ্ত মাত্রানুসারে উপ-আইন প্রণয়ন করতে পারে। এ ধরনের অধীন আইনগুলো বিধি বা প্রবিধান হিসেবে পরিচিত। মূল আইনের এখতিয়ার বহির্ভূত না হলে এ ধরনের বিধি বা প্রবিধান সংসদ কর্তৃক প্রণীত আইনের মতোই আদালত কর্তৃক বলবৎযোগ্য। দেশের গুরুত্বপূর্ণ আইনসমূহকে কয়েকটি  প্রধান ভাগে বিভক্ত করা যায়, যেমন ভূমি ও সম্পত্তি আইন, ব্যক্তি আইন, বাণিজ্য আইন, শ্রম ও শিল্প আইন, নির্বাচন আইন, অপরাধ আইন, চাকুরি আইন, অর্থ আইন, প্রেস আইন ও প্রতিকার সম্পর্কিত আইন।

অধিকন্তু আরও বিভিন্ন বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের আইন রয়েছে, যা জাতীয় জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্র এবং পরিমন্ডলে কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। কোনো ব্যক্তিকে প্রতিবিধানের জন্য যথাযথ আদালত বা কর্তৃপক্ষের নিকট অভিযোগ দায়ের করতে হয়। দাবির মূল্য অনুযায়ী অর্থ, সম্পত্তি, ক্ষতিপূরণ ইত্যাদি সম্পর্কিত অভিযোগ দেওয়ানি আদালতে এবং অপরাধের বিরুদ্ধে অভিযোগ এলাকার প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেটের ফৌজদারি আদালতে দায়ের করতে হয়। পক্ষান্তরে, লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ম্যাজিস্ট্রেট বিচারকার্যে অভিযোগ গ্রহণ করলে আদালতে সাক্ষীদের উপস্থিত করার দায়িত্ব অভিযোগকারীর উপর বর্তায়। ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষ অন্যান্য  কর্তৃপক্ষের মাধ্যমেও প্রতিবিধান চাইতে পারে। এ সকল কর্তৃপক্ষের মধ্যে রয়েছে প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষ অথবা ট্রাইব্যুনাল। মৌলিক অধিকার কার্যকরকরণ, সামুদ্রিক বাণিজ্য, কোম্পানির বিষয়াদি ও রিট আবেদন ব্যতীত কোনো বিষয়ে হাইকোর্ট বিভাগের নিকট সরাসরি প্রতিবিধান চাওয়া যায় না, কারণ হাইকোর্ট বিভাগ প্রধানত অধস্তন আদালতসমূহের সিদ্ধান্তের ওপর আপিল ও পর্যালোচনার ক্ষমতা প্রয়োগ করে থাকে।

আইনব্যবস্থা এত ব্যাপক ও জটিল যে একজন সাধারণ ব্যক্তি কোনো আইনজীবীর সাহায্য ছাড়া আদালত, প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষ অথবা ট্রাইব্যুনাল থেকে কার্যকরভাবে আইনগত প্রতিবিধান পেতে পারে না, যদিও আইনজীবী নিয়োগ ব্যতীত সরাসরি প্রতিবিধান চাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো আইনগত বাধা নেই। সরকারের মুখ্য আইন কর্মকর্তা হলেন অ্যাটর্নি জেনারেল। তিনি পদাধিকারবলে বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান এবং আইনজীবীদের নেতা। তাকে অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল, উপ-অ্যাটর্নি জেনারেলগণ ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেলগণ সাহায্য করেন। তারা সুপ্রিম কোর্টে রাষ্ট্রের প্রতিনিধিত্ব এবং রাষ্ট্রের পক্ষে মামলাসমূহ পরিচালনা করেন। জেলায় দেওয়ানি বিষয়ে সরকারি উকিল হলেন মুখ্য সরকারি আইন কর্মকর্তা এবং তাকে সহায়তা দান করেন অতিরিক্ত ও সহকারী সরকারি উকিলগণ। তারা অধস্তন দেওয়ানি আদালতে রাষ্ট্রের প্রতিনিধিত্ব এবং রাষ্ট্রের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন। একইভাবে ফৌজদারি  বিষয়ে জেলায় সরকারি অভিযোক্তা বা পাবলিক প্রসিকিউটর হলেন আরেকজন মুখ্য আইন কর্মকর্তা। তাকে সাহায্য করেন সহকারী আইনজীবী। তারা জেলার দায়রা আদালত, দায়রা পর্যায়ের আদালত বা ট্রাইব্যুনালসমূহে রাষ্ট্রের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন। ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে পুলিশ ইন্সপেক্টর রাষ্ট্রের  পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন।

বাংলাদেশে আইনের  দৃষ্টিতে সকলেই  সমান, আইনের  সুরক্ষা পাওয়ার  সমান অধিকারী, এবং  এখানে ধর্ম, জাতি, লিঙ্গ ইত্যাদির কারণে কোনো বৈষম্য থাকতে পারে না। আইনের অনুমোদন ব্যতীত কারও জীবন, স্বাধীনতা, দেহ, খ্যাতি বা সম্পত্তির কোনো ক্ষতি সাধন অবৈধ।  আইনের শাসন হলো বাংলাদেশের  আইন ব্যবস্থার অন্যতম মৌলিক বৈশিষ্ট্য।

[কাজী এবাদুল হক]

গ্রন্থপঞ্জি Sir HS Marine, The Ancient Law, Boston, 1993; ABM Mofizul Islam Patwary, Legal System of Bangladesh, Dhaka, 1991; HJ Abraham, The Judicial Process, New York, 1980; WH Morley, The Administration of Justice in British India, New Delhi, 1976; NC Sengupta, The Evolution of Law, Calcutta, 1925. The Constitution of Bangladesh 1972; KE Hoque, Administration of Justice in Bangladesh, Dhaka 2006.