অস্ট্রোলয়েড


অস্ট্রোলয়েড  প্রাচীন বাংলায় একটি নৃ-গোষ্ঠী। নৃতত্ত্ববিদগণ এদেরকে আদি অস্ট্রেলীয় বলে  মনে করেন। এ জনগোষ্ঠীকে অস্ট্রিক বা অস্ট্রো-এশীয়ও বলা হয়। প্রাচীন সাহিত্যে এরা নিষাদ নামে পরিচিত। পন্ডিতদের মতে, অস্ট্রোলয়েডদের আদি বাসস্থান মধ্য ভারত থেকে শুরু করে দক্ষিণ ভারত এবং সিংহল থেকে অস্ট্রেলিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। কাল পরিক্রমায় তাদের একটি দল আদি বাসস্থান ত্যাগ করে বাংলায় অভিবাসন করে। বাংলার প্রাচীনতম বং জনগোষ্ঠীর পরবর্তী নেগ্রিটো জনগোষ্ঠীর পরে বাংলায় এদের আগমন ঘটে বলে অনুমিত হয়। এরা বাংলাদেশের কোল, ভীল,সাঁওতাল, ভূমিজ, মুন্ডা, বাঁশফোড়, মালপাহাড়ি প্রভৃতি জনগোষ্ঠীর পূর্বপুরুষ রূপে চিহ্নিত।

অস্ট্রিকদের সংস্কৃতি ও সভ্যতা ছিল কৃষি নির্ভর। এরা কলা, লাউ, বেগুন, নারকেল, পান, সুপারি, হলুদ, আদা প্রভৃতি ফসলের চাষ করত। সম্ভবত গরু এদের গৃহপালিত পশু ছিল না। তবে তারা যে হাতি পোষ মানিয়েছিল তার প্রমাণ পাওয়া যায়। অস্ট্রিকগণ সুতি বস্ত্র বয়ন এবং আখের রস থেকে চিনি তৈরি করত। সামাজিক সংগঠনে তাদের মধ্যে পঞ্চায়েত প্রথার প্রচলন ছিল বলে মনে করা হয়। বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতিতে এদের প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। এসব কারণে নৃতত্ত্ববিদগণ মনে করেন যে, বাংলাদেশের আদিম অধিবাসীদের ওপর অস্ট্রোলয়েডদের বেশ প্রভাব ছিল।

[এ.বি.এম শামসুদ্দিন আহমদ]