অবস্থা


অবস্থা  বেদান্ত দর্শনের একটি প্রত্যয়। বেদান্ত থেকে এ ধারণার উদ্ভব এবং এর দ্বারা অধ্যাত্মজগতের বিভিন্ন লোক বা স্তরে মানুষের চৈতন্যকে নির্দেশ করা হয়। উপনিষদে, বিশেষত মান্ডূক্যোপনিষদে এ ধারণাকে চৈতন্যের চারটি স্তর হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে: জাগ্রৎ, স্বপ্ন, সুষুপ্তি (গভীর ঘুম) ও তুরীয় (সম্পূর্ণ অচেতন অবস্থা)। তুরীয় অবস্থা লাভ হয় যোগের মাধ্যমে, যা সমাধি, কখনও বা মোক্ষ নামেও অভিহিত হয়। মান্ডূক্যোপনিষদে চৈতন্যের এ তিন অবস্থা পর্যায়ক্রমে সংগঠিত বিশ্বব্রহ্মান্ডের তিনটি স্তর এবং ওঙ্কার ধ্বনির তিনটি স্তরের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ হিসেবে ব্যাখ্যাত হয়েছে। চতুর্থ তুরীয় অবস্থা ব্রহ্মস্বরূপ। এ চার অবস্থা দ্বারা যে ভাব ব্যক্ত হয়েছে তা ব্রহ্মান্ডবিদ্যার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। অবস্থা দ্বারা অবশ্য মানব জীবনের চারটি পর্বকেও বোঝায়: বাল্য, যৌবন, প্রৌঢ় ও বার্ধক্য।  [সিরাজুল ইসলাম]