অধিচাপ


অধিচাপ (Overpressure)  ভূঅভ্যন্তরস্থ শিলাস্তর হতে ভূপৃষ্ঠ পর্যন্ত বিস্তৃত তরল স্তম্ভ কর্তৃক শিলাস্তরের উপর প্রদত্ত স্বাভাবিক চাপের চেয়ে অধিক চাপ। স্বাভাবিক অবস্থায় একটি প্রবেশ্য শিলাস্তরের উপর পর্যাপ্ত গভীরতা বিশিষ্ট একটি তরল স্তম্ভ প্রদত্ত চাপসহ স্থিতাবস্থা বজায় রাখে। অর্থাৎ, প্রবেশ্য শিলাস্তর থেকে ভূ-পৃষ্ঠ স্তর পর্যন্ত বিস্তৃত একটি পানিরাশির স্তর তার ওজনসহ ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থায় বিরাজ করে। তরলের এ চাপকে স্বাভাবিক চাপ বলা হয়। গভীরতার সাথে স্বাভাবিক হারেই এই চাপ বৃদ্ধি পায়। বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে স্বাভাবিককের চেয়ে অতিরিক্ত মাত্রায় চাপের উৎপত্তি ঘটে থাকে এই চাপকেই অধিচাপ বলা হয়।

বাংলাদেশের পূর্বাঞ্চলে খননকৃত সকল গভীর কূপই খননকার্যের সময় অধিচাপের সম্মুখীন হয়েছে। নিম্নের ছকটিতে সেসমস্ত কূপের নাম অন্যান্য বিবরণসহ লিপিবদ্ধ করা হলো। কিন্তু দেশের পশ্চিমাঞ্চলে (বগুড়ারাজশাহী) খননকৃত গভীর  কূপসমূহ কোনো প্রকার অধিচাপ মন্ডলের মুখোমুখি হয় নি। মায়োসিন যুগে বদ্বীপীয় পরিবেশে গঠিত ‘ভুবন’ স্তরসমষ্টির    অন্তর্ভুক্ত পুরু কর্দমশিলা স্তরকে অধিচাপ সংঘটনের জন্য দায়ী মনে করা হয়।

বাংলাদেশের অধিচাপযুক্ত কূপসমূহ:

কূপের নাম খননের সন অধিচাপ অঞ্চলের পৃষ্ঠ পর্যন্ত গভীরতা (মিটার) অধিচাপ অঞ্চলের মোট গভীরতা (মিটার)
পটিয়া-১ ১৯৫২ ২৫৭৫ ৩১০২
সিলেট-২ ১৯৫৬ ২৭০০ ২৮২০
ছাতক-১ ১৯৫৯ ১৯৮০ ২১৩৫
লালমাই-২ ১৯৬০ ৪০৫২ ৪১১৯
রশিদপুর-২ ১৯৬০ ৪১২০ ৪৫৯৩
কৈলাশটিলা-১ ১৯৬১ ৩৫৬০ ৪১৪১
তিতাস-১ ১৯৬২ ৩৬৫০ ৩৭৫৯
সেমুতাং-১ ১৯৬৭ ৩২০০ ৪০৮৩
মুলাদি-১ ১৯৭৫ ৪৫০০ ৪৭৩২
বেগমগঞ্জ-১ ১৯৭৬ ৩৩০০ ৩৬৫৬
বিয়ানীবাজার-১ ১৯৮১ ৪০১৬ ৪০৯৭

পৃথিবীর অন্যান্য অঞ্চলের সাথে বাংলাদেশের টারশিয়ারী যুগের বদ্বীপীয় শিলাস্তরসমূহের গঠনের ইতিহাস তুলনা করলে প্রতীয়মান হয় যে, দ্রুত সঞ্চায়নকার্যই বঙ্গীয় অববাহিকায় অধিচাপ মন্ডল গঠনের অন্যতম কারণ। এছাড়া ভূ অভ্যন্তরে শিলারাশিতে হাইড্রোকার্বন গ্যাসের উৎপত্তি ও অধিচাপের সৃষ্টি করে থাকে। বঙ্গীয় অববাহিকায় এ যাবৎকালে খননকৃত কূপসমূহ হতে প্রাপ্ত কর্দমশিলার নমুনায় ‘স্মেকটাইট’ নামক কর্দমের পানিবিয়োজনের মাধ্যমে ‘ইলাইট’ নামক কর্দমে রূপান্তরিত হওয়ার সুস্পষ্ট ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। কর্দমের এই পানি বিয়োজনও অধিচাপ সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে থাকে।

হাইড্রোকার্বন অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে অধিচাপ সর্বদাই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিবেচ্য বিষয়। অধিচাপ মন্ডলে বিপুল পরিমাণ হাইড্রোকার্বন সঞ্চিত অবস্থায় থাকতে পারে। তদুপরি অধিচাপ অঞ্চল স্বাভাবিক চাপবিশিষ্ট অধিশায়িত স্তরে হাইড্রোকার্বন গ্যাস স্থানান্তরে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। অন্যদিকে অনুসন্ধানকার্যে নিয়োজিত খননকারীদের জন্য এ অঞ্চল অত্যন্ত ঝুকিপূর্ণ। বিশেষ করে, পরীক্ষামূলক কূপ খননের ক্ষেত্রে অধিচাপ অঞ্চলের কারণে আকস্মিক বিস্ফোরণ বা ‘ব্লো আউটের’ ঘটনা ঘটে থাকে যাতে প্রাণহানি পর্যন্ত হতে পারে। সেকারণে, একটি নিরাপদ অনুসন্ধানকর্ম পরিচালনার জন্য অধিচাপ অঞ্চলের প্রকৃতি সম্পর্কে অবশ্যই সুস্পষ্ট ধারণা পোষণ করতে হবে।

[মীর মঈনুল হক ও সানজিদা মূর্শেদ]

আরও দেখুন ব্লো আউট