অগ্রণী স্কুল ও কলেজ


অগ্রণী স্কুল ও কলেজ ঢাকার আজিমপুরে অবস্থিত মেয়েদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ড. কাজী আনোয়ারা মনসুর ১৯৫৭ সালের ২১ জানুয়ারি ১৪ জন ছাত্রছাত্রী নিয়ে আজিমপুর কিন্ডার গার্টেন স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। এই কিন্ডার গার্টেন স্কুলই বর্তমান অগ্রণী স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে উন্নীত। প্রাথমিক পর্যায়ে স্কুলের শিক্ষার মাধ্যম ছিল ইংরেজি। ১৯৬৭ সালে আজিমপুর কিন্ডার গার্টেন স্কুল উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে উন্নীত হয়। তখন এর নামকরণ হয় অগ্রণী বালিকা বিদ্যালয়। এ সময় থেকে অগ্রণী বালিকা বিদ্যালয়ে শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে বাংলা প্রচলিত হয়। ১৯৯৪ সালে কলেজ শাখা খোলা হলে বিদ্যালয়টির নামকরণ হয় অগ্রণী স্কুল ও কলেজ। শুরু থেকে কলেজে উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ে মানবিক, বাণিজ্য ও বিজ্ঞান শাখা চালু করা হয়। বর্তমানে অগ্রণী স্কুল ও কলেজের ছাত্রী ৪০০০ এবং শিক্ষক-শিক্ষিকা ৭৮ জন। প্রতি বছর এস.এস.সি ও এইচ.এস.সি পরীক্ষায় গড়ে ৯৮% ছাত্রী কৃতকার্য হয়।

বিদ্যালয়ের প্রথম প্রধান শিক্ষিকা ড. কাজী আনোয়ারা মনসুর ১৯৫৭ সাল থেকে ১৯৮৭ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। নারী শিক্ষায় অনন্য অবদানের জন্য ড. কাজী আনোয়ারা মনসুর এবং অধ্যক্ষ রোকেয়া মান্নান বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক বেগম রোকেয়া পদকে ভূষিত হন।  [শহীদুল ইসলাম বিশ্বাস]